হাইকোটে রিট : সাতক্ষীরায় নিখোঁজ ডাঃ মোখলেছুরকে আদালতে হাজির করার নির্দেশ


976 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
হাইকোটে রিট : সাতক্ষীরায় নিখোঁজ ডাঃ মোখলেছুরকে আদালতে হাজির করার নির্দেশ
মার্চ ২০, ২০১৭ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

ইব্রাহিম খলিল ::
জঙ্গি সন্দেহে আটক করে তিন দিন থানা লকআপে রাখার পর নিখোঁজ হোমিও চিকিৎসক সাতক্ষীরা জেলা শহরের কুকরালির হোমিও ডাক্তার মোখলেছুর রহমান জনিকে খুঁজে বের করে চার সপ্তাহের মধ্যে  বিচারিক আদালতে হাজির করানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। একই সাথে আদালতের আদেশ বাস্তবায়নের বিষয়ে সাতক্ষীরা পুলিশ সুপার ও সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে অগ্রবর্তী প্রতিবেদন দাখিল করতে বলা হয়েছে। নিখোঁজ জনির স্ত্রী জেসমিন নাহারের দায়ের করা রিট পিটিশন শুনানী শেষে হাইকোর্টের বিচারপতি কাজী রেজা-উল হক ও  বিচারপতি মোহাম্মদ উল্লাহ’র সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ রোববার এ আদেশ দেন। আগামি ৯ মে এ মামলাটি শুনানীর জন্য কার্যতালিকায় রাখার জন্য বলা হয়েছে।

সাতক্ষীরা ল’ কলেজের চুড়ান্ত বর্ষের ছাত্রী শহরের কুকরালির হোমিও চিকিৎসক ডাঃ জেসমিন নাহার রেশমার জারি করা রিট পিটিশনে (২৮৩৩/১৭) উল্লে করেছেন যে, গত বছরের ৪ আগষ্ট রাত সাড়ে ৯টার দিকে অসুস্থ বাবার জন্য  বাইসাইকেলে ঔষধ কিনতে যেয়ে সাতক্ষীরা শহরের লাবনী সিনেমা হলের মোড় এলাকা থেকে সদর থানার উপপরিদর্শক হিমেল তার স্বামী হোমিও চিকিৎসক মোখলেছুর রহমান জনিকে থানায় ধরে নিয়ে যায়। ৫,৬ ও ৭ আগষ্ট তিনি শ্বশুর ও স্বজনদের নিয়ে থানা লক আপে তাকে খাবার দিয়েছেন, তার সঙ্গে কথা বলেছেন। ততকালিন থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এমদাদুল হক শেখ ও উপপরিদর্শক হিমেলের সঙ্গে কথা বললে জনির জঙ্গি সম্পৃক্ততা রয়েছে বলে জানানো হয়। স্বামীর মুক্তির বিনিময়ে তার কাছে দাবি করা হয় মোটা অংকের টাকা। ৮ আগষ্ট থানায় গেলে জনিকে পাওয়া যায়নি। পুলিশ জনির অবস্থান সম্পর্কে জানাতে পারেনি। বিষয়টি  সাংবাদিক জনপ্রতিনিধি, ক্ষমতাসীন দলের নেতা, জেলা প্রশাসককে অবহিত করেছেন।  ২৪ আগষ্ট জানানো হয় সাতক্ষীরা পুলিশ সুপারকে।  ২৬ ডিসেম্বর সদর থানায় সাধারণ ডায়েরী করতে েেগলে পুলিশ তা গ্রহণ করেনি। বাধ্য হয়ে তিনি ৩ জানুয়ারি সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেছেন।  স্বামীর খোঁজে সাত মাস ধরে প্রশাসনের দ্বারে দ্বারে ধর্না দিয়েছেন তিনি।

একপর্যায়ে তার সন্ধান না করতে পেরে গত ২ মার্চ হাইকোর্টে রিট পিটিশন দাখিল করেন তিনি। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, মহাপুলিশ পরিদর্শক, উপমহাপুলিশ পরিদর্শক (খুলনা), সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক, সাতক্ষীরা পুলিশ সুপার, সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা, উপপরিদর্শক হিমেল ও সাতক্ষীরা কারাগারের জেলরকে বিবাদী করা হয়। রিট দায়েরের পর গত ৬ মার্চ  শুনানী শেষে আদালত রুল জারির পাশাপাশি নিখোঁজের বিষয়ে সাতক্ষীরা পুলিশ সুপারের ব্যাখ্যা চেয়ে ১৯ মার্চ দিন ধার্য করেন। ১৯ মার্চ রোববার আদালতে উপস্থাপন করা পুলিশ সুপারের ব্যাখ্যায় বলা হয়, নিখোঁজ মোখলেছুর রহমান নিষিদ্ধ সংগঠন ‘আল্লাহ’র দল’ এর সঙ্গে যুক্ত এবং তাকে গ্রেফতার করা হয় নাই।
রিটকারি পক্ষের আইনজীবী ছিলেন মোঃ মতিয়ার রহমান। রাষ্ট্রপক্ষে আইনজীবী ছিলেন ডেপুটি এটর্নি জেনারেল তাপস কুমার বিশ্বাস।