হারিয়ে যাচ্ছে গ্রাম বাংলার কুপি বাতি


4515 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
হারিয়ে যাচ্ছে গ্রাম বাংলার কুপি বাতি
জানুয়ারি ২৮, ২০১৬ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

পলাশ কর্মকার, কপিলমুনি (খুলনা) ঃ
কুপি বাতি এখন যেন শুধুই স্মৃতি, আধুুনিক প্রযুক্তির কল্যাণে গ্রাম বাংলার কুপি বাতি যেন নিভে গেছে। এক কালে গ্রাম বাংলার ঘরে ঘরে কুপি বাতি ছিল, যা এখন খুব কম চোখে পড়ে। গ্রাম বাংলার সেই অতি প্রয়োজনীয় কুপি আজ এক প্রকার বিলীন হয়ে গেছে। অমাবশ্যার রাতে মিটি মিটি আলো জ্বালিয়ে গ্রামের মানুষের পথচলার স্মৃতি এখনো সৃষ্টিশীলদের কাছে টানে। একটা সময় ছিলো যখন গ্রাম বাংলার আপামর জনসাধারণের অন্ধকারে অলোক বর্তিকার কাজ করতো কুপি। এই কুপিগুলো ছিল বাহারী রং ও ডিজাইনের। সাধারণত এগুলো তৈরী হতো মাটি, লোহা, কাঁচ ও পিতল দিয়ে। সামর্থ অনুযায়ী মানুষ কুপি কিনে ব্যবহার করতেন। বাজারে সাধারণত ছোট ও বড় দুই ধরণের কুপি পাওয়া যেত। বেশি আলোর প্রয়োজনে কুপি গুলো  কাঠ ও মাটির তৈরী দেলকো বা স্টান্ডের উপর রাখা হতো। এই দেলকো বা স্টান্ড গুলো ছিল বিভিন্ন বাহারী ডিজাইনের। কিন্তু বর্তমানে গ্রামে বিদ্যুতের ছোঁয়ায় কুপির কদর যেন হারিয়ে গেছে। বিদ্যুৎ না থাকলেও অজপাড়াগাঁতেও মানুষ ব্যবহার করছেন সৌর বিদ্যুৎ সহ বিভিন্ন প্রকার চার্জার। গ্রাম বাংলার আপামর মানুষের  কাছে কুপির কদর হারিয়ে গেলেও কেউ কেউ এই কুপির স্মৃতি এখনো আকড়ে ধরে আছেন। খুলনা জেলার পাইকগাছা উপজেলার উত্তর সলুয়া গ্রামের সুকুমার কর্মকারের বাড়ীতে বিদ্যুৎ না থাকায় কুপি’র আলোতে ছোট্ট শিশু প্রাপ্তিকে বই পড়তে দেখা যায়। ওই এলাকায় সৌখিন অনেক মানুষকে কুপি ব্যবহার করতেও দেখা যায়। কেউ কেউ আবার স্বযতেœ আবহমান গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যের নিদর্শণ স্বরুপ এটি সংরক্ষণ করছেন। কুপির কদর ও ব্যবহার যে হারে লোপ পাচ্ছে তাতে ভবিষ্যতে কুপি বাতি স্মৃতি হয়ে থাকবে। আবহমান গ্রাম বাংলায়  কুপি বাতির মতো ঐতিহ্যবাহী নিদর্শন আজ প্রযুক্তির কল্যাণে বিলীন হয়ে যাচ্ছে।
##

সাংবাদিক নেতার মৃত্যুতে
কপিলমুনি সিটি প্রেসক্লাবের শোক
কপিলমুনি প্রতিনিধি :
সাংবাদিক নেতা আলতাফ মাহমুদের মৃত্যুতে গভীর শোক ও শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন কপিলমুনি সিটি প্রেসক্লাবের সাংবাদিকরা। শোক জ্ঞাপনকারীরা হলেন সভাপতি এম আজাদ হোসেন, সহ-সভাপতি এইচ এম এ হাসেম, সাধারণ সম্পাদক পলাশ কর্মকার, সহ-সাধারণ সম্পাদক এইচ এম জিয়াউর রহমান, কোষাধ্যক্ষ জগদীশ দে, সাংগঠনিক সম্পাদক মজুমদার পলাশ, দপ্তর সম্পাদক এম আজিজুর রহমান, ক্রিড়া ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক স ম নজরুল ইসলাম, প্রচার সম্পাদক আঃ সবুর আল-আমীন, কার্যকরী সদস্য মোঃ বদরুল আলম, মোঃ রফিকুল ইসলাম খান, সদস্য এম এম কামরুল ইসলাম প্রমুখ।