হিমু হত্যায় ব্যবহৃত সেই হিংস্র কুকুরটির মৃত্যু


462 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
হিমু হত্যায় ব্যবহৃত সেই হিংস্র কুকুরটির মৃত্যু
আগস্ট ২০, ২০১৮ জাতীয় ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন ডেস্ক ::
চট্টগ্রামের সেই চাঞ্চল্যকর হিমাদ্রী মজুমদার হিমু হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত জার্মানির রটওয়েলার জাতের হিংস্র কুকুরটি হার্ট অ্যাটাকে মারা গেছে।

সোমবার সকাল আটটায় চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানার খাঁচায় কুকুরটির মৃত্যু হয়।

চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানা পরিচালনা কমিটির সদস্য সচিব ও কাপ্তাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রহুল আমিন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানার ভেটেরিনারি সার্জন ডা. মো. শাহাদাত হোসেন শুভ জানান, এ জাতের কুকুর সাধারণত ১০ বছর বেঁচে থাকে। হিমু হত্যা মামলার আসামি কুকুরটি চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানাতেই সাড়ে ছয় বছর বন্দি ছিল। ময়নাতদন্ত করে দেখা গেছে হার্ট অ্যাটাকে কুকুরটি মারা গেছে।

কাপ্তাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রহুল আমিন বলেন, ২০১২ সালের মে মাসে আদালতের নির্দেশে কুকুরটি চিড়িয়াখানায় বন্দি রাখা হয়। প্রতি মাসে কুকুরটির পেছনে প্রায় ১৫ হাজার টাকা ব্যয় হতো চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষের।

এর আগে ২০১২ সালের ২৭ এপ্রিল নগরীর পাঁচলাইশ আবাসিক এলাকার ১ নম্বর সড়কের ‘ফরহাদ ম্যানশন’ নামে ১০১ নম্বর বাড়ির চারতলায় হিংস্র কুকুরটি লেলিয়ে দিয়ে হিমুকে নিমর্মভাবে নির্যাতন করা হয়। এক পর্যায়ে কয়েকজন যুবক হিমুকে নিচে ফেলে দেয়। গুরুতর আহত হিমু ২৬ দিন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে ২৩ মে ঢাকার একটি হাসপাতালে মারা যান। নিহত হিমু পাঁচলাইশ আবাসিক এলাকার ১ নম্বর সড়কের ইংরেজি মাধ্যমের সামারফিল্ড স্কুল অ্যান্ড কলেজের ‘এ’ লেভেলের শিক্ষার্থী ছিলেন।