হোয়াইটওয়াশ এড়াল অস্ট্রেলিয়া


134 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
হোয়াইটওয়াশ এড়াল অস্ট্রেলিয়া
জুলাই ১৫, ২০২১ খেলা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন ডেস্ক ::

অবশেষে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে জয় পেল অস্ট্রেলিয়া। এই জয়ে হোয়াইটওয়াশ হাত থেকে বাঁচল অস্ট্রেলিয়া। পাঁচ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম তিন ম্যাচ জিতে সিরিজ নিজেদের করে ইতোমধ্যে নিজেদের করে নিয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। চতুর্থ টি-টোয়েন্টি ৪ রানে জিতে ব্যবধানটা ৩-১ করল অজিরা।

এ ম্যাচের টস ভাগ্য ছিলো অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে। বৃহস্পতিবার (১৫ জুলাই) ভোরে সেন্ট লুসিয়ায় ড্যারেন স্যামি জাতীয় স্টেডিয়ামে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে ১৮৯ রান করে অস্ট্রেলিয়া। জবাবে ৬ উইকেটে ১৮৫ রান করে উইন্ডিজ।
ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুটা বাজে হয় অস্ট্রেলিয়ার। দলীয় ১২ রানেই প্যাভিলিয়নে ফিরে যান ওপেনার ম্যাথু ওয়েড। তবে অজি অধিনায়কের ব্যাটিং নৈপুণ্যে শুরুর চাপটা সামলে উঠে অস্ট্রেলিয়া। দলীয় ১২৬ রানে সাজঘরে ফিরে যায় অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ।

আউট হওয়ার আগেই ব্যাটসম্যান করেন ৩৭ বলে ৫৩ রান। তবে মিচেল মার্শ ছাড়া আর কেউই উইকেটে থিতু হতে পারেনি। মিচেল মার্শের ব্যাট থেকে আসে ৪৪ বলে ৭৫ রান। শেষের দিকে ড্যান ক্রিশ্চিয়ান ও মিচেল স্টার্কের ব্যাটিংয়ে ভর করে ১৮৯ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর পায় অস্ট্রেলিয়া

১৯০ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে প্রথম ৫ ওভারেই লেন্ডল সিমন্স ও এভিন লুইস ওপেনিং জুটিতে আসে ৬২ রান। তাদের এই জুটি ভাঙেন অ্যাডাম জাম্পা। ১৪ বলে ৩১ রানে বিদায় নেন লুইস। এরপর মার্শ দ্রুত ফেরান ক্রিস গেইলকে (১)। পরে দ্বিতীয় শিকার হিসেবে তুলে নেন সিমন্সকে। ক্যারিবীয় ওপেনারের ৪৮ বলে ৭২ রানের ইনিংসটি সাজানো ছিল ১০ চার ও ২ ছয়ে। এরপর উইকেটরক্ষক-অধিনায়ক নিকোলাস পুরানও (১৪) মার্শের তৃতীয় হিসেবে সাজঘরে ফেরেন।

এর আগে জাম্পা নিজের দ্বিতীয় শিকার হিসেবে ফেরান আন্দ্রে ফ্লেচারকে (৬)। হঠাৎ হাত থেকে জয় ছুটে যাচ্ছিল ক্যারিবীয়দের। তবে সেই আশা ফের জাগিয়ে তোলেন ফাবিয়ান অ্যালেন ও আন্দ্রে রাসেল। কিন্তু শেষ হাসিটা হাসল অজিরা। রিলে ম্যারেডিথের করা ১৯তম ওভারের শেষ বলে সাজঘরে ফেরেন দুর্দান্ত খেলতে থাকা অ্যালেন। ১৪ বলে ২ চার ও ৩ ছয়ে ২৯ রান করে অজিদের মাথা ব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছিলেন তিনি।

অ্যালেন ওয়েডকে ক্যাচ দিয়ে ফিরলে স্ট্রাইক পায় রাসেল। জয়ের জন্য ৬ বলে ১১ রান করতে ব্যর্থ হন তিনি। রাসেল ১৩ বলে অপরাজিত ছিলেন ২২ রানে। স্টার্ক ৪ ওভারে ৩৭ রান দিয়ে কোনো উইকেট পাননি। তবে শেষ ওভারে রাসেলকে জয়সূচক রান করতে না দেওয়ার নায়ক তিনি। ম্যাচ সেরা হয়েছেন মার্শ।