২৮ ফেব্রুয়ারি একগুচ্ছ ভোট


162 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
২৮ ফেব্রুয়ারি একগুচ্ছ ভোট
জানুয়ারি ২৩, ২০১৯ জাতীয় ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

উপজেলা নির্বাচনের প্রথম ধাপ ৯ মার্চ

অনলাইন ডেস্ক ::

আদালতের নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের পর ঢাকা উত্তর সিটি মেয়র পদে উপনির্বাচন এবং দুই সিটির (উত্তর ও দক্ষিণ) বর্ধিত অংশের কাউন্সিলর পদে নির্বাচনের নতুন তফসিল ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। এ ছাড়া কিশোরগঞ্জ-১ আসনের সাধারণ নির্বাচনের তফসিলও ঘোষণা করা হয়েছে। আগামী ২৮ ফেব্র্রুয়ারি বৃহস্পতিবার দেশে অনুষ্ঠিত হবে একসঙ্গে একগুচ্ছ ভোট। বরগুনা জেলার আমতলী ও পটুয়াখালী সদর পৌরসভায়ও একই দিনে ভোট নেওয়া হবে।

এ ছাড়া আগামী ৯ মার্চ উপজেলা পরিষদের প্রথম ধাপের ভোট নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। তবে এর বিস্তারিত তফসিল ঘোষণা করা হয়নি। এসব নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেন ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ। তিনি বলেন, ঢাকার নির্বাচনের কারণে একাদশ সংসদের সংরক্ষিত ৫০টি নারী আসনের তফসিল পূর্বনির্ধারিত ১৭ ফেব্রুয়ারির পরিবর্তে আগামী ৩ ফেব্রুয়ারি ঘোষণা করা হবে।

গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনের মিডিয়া সেন্টারে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে তিনি এসব তথ্য জানান। এর আগে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদার সভাপতিত্বে কমিশন সভায় এসব সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

সভার পর ইসি সচিব বলেন, ঢাকা উত্তর সিটি মেয়র পদে উপনির্বাচন ও ঢাকা উত্তর-দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মোট ৩৬টি সংরক্ষিত ও সাধারণ ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এগুলো সিটি করপোরেশনের বর্ধিত এলাকা। দুই সিটি মিলিয়ে সাধারণ ও সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর পদ হবে মোট ৪৮টি। এসব পদে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ সময় ৩০ জানুয়ারি। মনোনয়ন বাছাই ২ ফেব্রুয়ারি।

মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করা যাবে ৯ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত।

সাবেক মেয়র আনিসুল হকের মৃত্যুতে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র পদ শূন্য হয়েছিল ২০১৭ সালের নভেম্বরে। ওই পদে উপনির্বাচনের পাশাপাশি ঢাকার দুই সিটির নতুন ৩৬টি ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে নির্বাচনের জন্য গত বছর তফসিলও ঘোষণা করেছিল ইসি। ২০১৮ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি ভোট গ্রহণের কথা ছিল। কিন্তু আদালতের স্থগিতাদেশের কারণে তফসিল স্থগিত রাখা হয়। সম্প্রতি আদালতের স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে।

ইসি সচিব জানান, ঢাকা সিটি নির্বাচনের আগের তফসিল অনুযায়ী যারা মনোনয়নপত্র সংগ্রহ ও জমা দিয়েছিলেন, তাদেরও নতুন করে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করতে হবে। আগে যারা মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন, তাদের জামানতের টাকা ফেরত দেওয়া হবে। ঘোষিত নতুন তফসিল অনুযায়ী নির্ধারিত সময়ে আগ্রহীদের মনোনয়নপত্র জমা দিতে হবে। ওই তফসিলে যাদের এ নির্বাচনের জন্য রিটার্নিং কর্মকর্তা ও সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল, এবারও তারাই বহাল থাকবেন।

ইসি কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, ঢাকা উত্তরের ৫৪ ওয়ার্ডে ভোটার ২৯ লাখ ৪৮ হাজার ৫১০ জন। মেয়র পদে দলীয় প্রতীকে এরা সবাই ভোট দেওয়ার সুযোগ পাবেন। তবে উত্তর সিটির নতুন ১৮ ওয়ার্ডে ভোটার রয়েছেন পাঁচ লাখ ৭১ হাজার ৬৮৪ জন। মেয়র পদের সঙ্গে তারা নতুন কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ভোট দেওয়ার সুযোগ পাবেন। এই সিটিতে রিটার্নিং কর্মকর্তার দায়িত্ব পালন করবেন ইসির যুগ্ম সচিব (চলতি দায়িত্ব) আবুল কাসেম। তার সঙ্গে থাকবেন ১২ জন সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা।

পাশাপাশি দক্ষিণের বর্ধিত ১৮ ওয়ার্ডে ভোটার রয়েছেন চার লাখ ৭৭ হাজার ৫১০ জন। শুধু তারা নতুন সাধারণ ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে নির্বাচনে ভোট দেবেন। দক্ষিণে রিটার্নিং কর্মকর্তার দায়িত্ব পালন করবেন ঢাকার আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা রকিবউদ্দিন ম ল। তার সঙ্গে থাকবেন ছয়জন সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা। ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণের একটি করে ভোটকেন্দ্রে ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএমে) ভোট নেওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে।

কিশোরগঞ্জে নতুন নির্বাচন : এদিকে কিশোরগঞ্জ-১ আসনের নতুন নির্বাচন আয়োজনের সিদ্ধান্তের কথা উল্লেখ করে ইসি সচিব বলেন, কিশোরগঞ্জ-১ (সদর-হোসেনপুর) আসনে গত ৩০ ডিসেম্বর দেশের অন্যান্য আসনের সঙ্গেই ভোট হয়েছিল।

ইসি সচিব জানান, ওই নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম নির্বাচিত হলেও গেজেট প্রকাশের পর শপথ না নেওয়ায় তার আসনে সাধারণ নির্বাচন হচ্ছে। আসনটি শূন্য ঘোষণা করে গেজেট প্রকাশের আর দরকার নেই। ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে যারা এ আসনে প্রার্থী হয়েছিলেন, তারা চাইলে এবারও প্রার্থী হতে পারবেন। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে তাদের রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে মনোনয়নপত্র জমা দিতে হবে।

ইসি ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, একই দিনে ভোট গ্রহণ করা হলেও কিশোরগঞ্জ-১ আসনের মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিন ধার্য করা হয়েছে ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত। যাচাই-বাছাই হবে ৩ ফেব্রুয়ারি, মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করা যাবে ১০ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত।

উপজেলার প্রথম ধাপ ৯ মার্চ : ইসির পক্ষ থেকে আগেই ঘোষণা করা হয়েছিল, এবারের উপজেলা নির্বাচন হবে পাঁচ ধাপে। এর মধ্যে আগামী ৮ বা ৯ মার্চ প্রথম দফার ভোট নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ।

ইসি সচিব বলেন, আগামী ৩ ফেব্রুয়রি নির্বাচন কমিশনের আরেকটি সভা অনুষ্ঠিত হবে। সেখানেই তফসিল ঘোষণাসহ কোন বিভাগের কোন জেলার কোন কোন উপজেলার ভোট হবে, তা ঠিক করা হবে। তবে ইসি কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, সচিব প্রথম ধাপ ৮ বা ৯ মার্চের কথা বললেও ৮ মার্চ শুক্রবার নারী দিবস। ওই দিন ভোট নেওয়ার সুযোগ নেই। দ্বিতীয় ধাপের নির্বাচন ১৮ মার্চ, তৃতীয় ধাপের নির্বাচন ২৪ মার্চ, চতুর্থ ধাপের নির্বাচন ৩১ মার্চ অনুষ্ঠিত হবে। পঞ্চম ধাপের নির্বাচন রমজান মাস ও ঈদের পরে অনুষ্ঠিত হবে। এবারই প্রথম দলীয় প্রতীকে এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। তবে এতে অংশ নিচ্ছে না বিএনপি। তারা ইতিমধ্যেই ঘোষণা করেছেন, এই ইসির অধীনে আর কোনো নির্বাচনে তারা অংশ নেবেন না। একাদশ সংসদ নির্বাচনের ফলও তারা প্রত্যাখ্যানের কথা জানিয়েছেন।

এ সংক্রান্ত এক প্রশ্নের জবাবে ইসি সচিব বলেন, উপজেলা পরিষদ স্থানীয় সরকারের নির্বাচন। এই নির্বাচন অনুষ্ঠানে আইনি বাধ্যবাধকতা রয়েছে। সে অনুযায়ী ভোট করতে হবে। কে এলো বা না এলো তা বিবেচনায় নেওয়ার কোনো সুযোগ নেই।

সংরক্ষিত নারী আসনে তফসিল ৩ ফেব্রুয়ারি : একাদশ জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত নারী আসনে আগামী ১৭ ফেব্রুয়ারি তফসিল দেওয়ার কথা থাকলেও গতকালের বৈঠকে ওই সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করে ৩ ফেব্রুয়ারি করা হয়েছে। ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ জানিয়েছেন, এই নির্বাচনে ভোটাভুটির বিষয় না থাকায় এবং ওই সময় ঢাকা সিটির নির্বাচন নিয়ে ইসির ব্যস্ততার কারণে সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করা হয়েছে।

ইসি সচিব বলেন, এ ছাড়া পটুয়াখালী পৌরসভা, আমতলী পৌরসভা এবং ১১টি ইউনিয়ন পরিষদ ও কয়েকটি পৌরসভার একাধিক ওয়ার্ডের উপনির্বাচনও হবে ২৮ ফেব্রুয়ারি।