৪৫ বছর পর পাইকগাছা থেকে বঙ্গবন্ধুর ব্যবহৃত দূর্লভ (ট্যোবাকো) পাইপ এর সন্ধান লাভ


645 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
৪৫ বছর পর পাইকগাছা থেকে বঙ্গবন্ধুর ব্যবহৃত দূর্লভ (ট্যোবাকো) পাইপ এর সন্ধান লাভ
আগস্ট ১১, ২০১৬ খুলনা বিভাগ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

এস, এম, আলাউদ্দিন সোহাগ, পাইকগাছা :
প্রায় ৪৫ বছর পর  বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের ব্যবহৃত (ট্যোবাকো) পাইপ বঙ্গবন্ধু জাদুঘরে সংরক্ষণের উদ্দেশ্যে থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেছে মোঃ দাউদ আলী নামে পাইকগাছার এক ব্যক্তি। বৃহস্পতিবার দুপুর ১টার দিকে থানার অফিসার ইনচার্জ মারুফ আহম্মদের নিকট পাইপটি হস্তান্তর করা হয়।

উল্লেখ্য, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান পাকিস্তানের কারাগার থেকে দেশে প্রত্যাবর্তনের পর ১৯৭২ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি ওয়াপদার বেড়িবাঁধ উদ্বোধনের উদ্দেশে পাইকগাছা সফর করেন। আলমতলাস্থ বেড়িবাঁধের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে পানি উন্নয়ন বোর্ডের অতিথি ভবনে এলাকাবাসীর সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। এ সময় গড়ইখালী ইউনিয়নের পাতড়াবুনিয়া গ্রামের মৃত মুন্সী তাজেল গাজীর ১২ বছরের শিশু পুত্র মোঃ দাউদ আলীর হাতে হাত দিয়ে শুভেচ্ছা বিনিময় করার সময় বঙ্গবন্ধুর মুখ থেকে ব্যবহৃত (ট্যোবাকো) পাইপটি মাটিতে পড়ে যায়। পরে বঙ্গবন্ধু পাইপটি আর ওঠাননি। এ সময় শিশু দাউদ আলী পড়ে থাকা পাইপটি কুড়িয়ে নিয়ে নিজের কাছে যতœ করে রেখে দেয়। ৩১ বছর নিজের কাছে রাখার পর পাইপটি একই এলাকার রায় সাহেব কালি চরণ মন্ডলের পুত্র ভবতোষ মন্ডলের হেফাজতে রেখে দেন। দীর্ঘদিন পর দাউদ আলী ও ভবতোষ পাইপটি বঙ্গবন্ধু জাদুঘরে সংরক্ষণের উদ্দেশে হস্তান্তর করার সিদ্ধান্ত নেয়। আর এ লক্ষে তারা দু’জন শরণাপন্ন হয় উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ডেপুটি কমান্ডার আব্দুর রাজ্জাক মলঙ্গীর নিকট। এ ঘটনা শোনার পর মলঙ্গী বিষয়টি থানার অফিসার ইনচার্জ মারুফ আহম্মদকে অবহিত করেন। অবশেষে সকল জল্পনা কল্পনার অবসান ঘটিয়ে বৃহস্পতিবার দুপুরে সকলের উপস্থিতিতে পাইপটি ওসি মারুফ আহম্মদের নিকট হস্তান্তর করেন দাউদ আলী ও ভবতোষ। এ ব্যাপারে ওসি মারুফ আহম্মদ বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, উদ্ধারকৃত বঙ্গবন্ধুর ব্যবহৃত দূর্লভ পাইপটি বঙ্গবন্ধু জাদুঘরে হস্তান্তরের ব্যাপারে প্রয়োজনীয় সব ধরণের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।
###
###
পাইকগাছায় আওয়ামীলীগের জাতীয় শোক দিবসের প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত
পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি ॥
পাইকগাছা উপজেলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে এক প্রস্তুতি মূলক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে দলীয় কার্যালয়ে আ’লীগনেতা অধ্যক্ষ লুৎফর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন স্থানীয় সংসদ সদস্য এ্যাডঃ শেখ মোঃ নূরুল হক। বক্তব্য রাখেন উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার শেখ শাহাদাৎ হোসেন বাচ্চু, ডেপুটি কমান্ডার আব্দুর রাজ্জাক মলঙ্গী, আ’লীগনেতা রতন কুমার ভদ্র, শেখ মনিরুল ইসলাম, বিজন বিহারী সরকার, নির্মল মন্ডল, ইউপি চেয়ারম্যান দিবাকর বিশ্বাস, রিপন কুমার মন্ডল, কেএম আরিফুজ্জামান তুহিন, সাবেক চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মুনছুর আলী গাজী, মুক্তিযোদ্ধা শেখ জামাল হোসেন, রণজিত সরকার, তোকারম হোসেন, আ’লীগনেতা আব্দুল হাকিম গোলদার, গাজী মিজান, সরদার গোলাম মোস্তাফা, নির্মল মজুমদার, ভূধর চন্দ্র বিশ্বাস, মোঃ দাউদ শরীফ, শেখ কফিল উল্লীন, দিপ্তী রানী চক্রবর্তী, সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান কৃষ্ণপদ মন্ডল, প্রভাষক মাসুদুর রহমান মন্টু, যুবলীগনেতা শেখ আনিছুর রহমান মুক্ত, এসএম শামছুর রহমান, শেখ আব্দুস সাত্তার, শেখ মাসুদুর রহমান, জগদীশ চন্দ্র রায়, প্রনব কান্তি মন্ডল, মিনরুল ইসলাম, যুব স্বেচ্ছাসেবক লীগনেতা আসিফ ইকবাল রনি, ছাত্রলীগনেতা মশিয়ার রহমান, মাসুদ পারভেজ রাজু, তানজিম মোস্তফা ও মনোজ। সভায় আগামী ১৫ই আগষ্ট জাতীয় শোক দিবস ও বঙ্গবন্ধুর শাহাদাৎ বার্ষিকী দলীয়ভাবে যথাযোগ্য মর্যাদায় পালনের সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়। এর আগে সভার শুরুতে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু সহ ১৫ আগষ্ট নিহত সকলের রুহের মাগফিরাত কামনায় এক মিনিট নিরাবতা পালন করা হয়।