৮৩ বছর বয়েসে ভ্যান চালিয়ে সংসার চলে বসির সরদারের। আজও পায়নি বয়স্ক ভাতা


372 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
৮৩ বছর বয়েসে ভ্যান চালিয়ে সংসার চলে বসির সরদারের। আজও পায়নি বয়স্ক ভাতা
আগস্ট ১৪, ২০১৫ তালা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

মোঃ কামরুজ্জামান মোড়ল :
৮৩ বছর বয়সে মুক্তিযোদ্ধা ভাতা এবং বয়স্ক ভাতা থেকে বঞ্চিত হতদরিদ্র সাতক্ষীরার তালা উপজেলার ভারসা গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা বসির সরদার। এই বৃদ্ধ বয়েসে ভ্যান চালিয়ে তার সংসার চালাতে হচ্ছে। সংসারে রয়েছে তার এক প্রতিবন্ধি সন্তান। বসির সরদার পাটকেলঘাটা গ্রামের মান্দার সরদারের ছেলে। ১৯৭১ সালে স্বাধীনতাযুদ্ধে তিনি অংশ নিয়েছিলেন।
৩ পুত্রের মধ্যে ২ পুত্র বিবাহের পরে পিতা-মাতাকে ছেড়ে আলাদা সংসার করছে তারা। তাদের বৃদ্ধ বাবা এখনও ভ্যান চালক। বর্তমান সংসারে একমাত্র ছোট ছেলে ওহিদুর সরদার (২৭) প্রতিবন্ধি। স্ত্রী মরিয়াম (৬০) জানান, ৩ জনের সংসারে বসত ভিটা ছাড়া কোন ফসলী জমি নেই। বর্তমানে বসির সরদার প্রতিদিন সকাল পাটকেলঘাটা স্বাগতা ক্লিনিক মোড় থেকে  সাতক্ষীরার আমতলাডাঙ্গা মোড়ে যাত্রী পরিবহন করে যে আয় হয় তা দিয়েই চলে তার সংসার। হতদরিদ্র এই মানুষরি কপালে আজও জোটেনি কোন বয়স্ক ভাতা, মুক্তিযোদ্ধা ভাতা ও ছেলের প্রতিবন্ধি ভাতা। ইউনিয়ন জনপ্রতিনিধিদের দ্বারে দ্বারে ঘুরে কোন লাভ হয়নি আজ পর্যন্ত।
বসির সরদার প্রতিবেদককে জানান, মুক্তিযোদ্ধার সময় সাতক্ষীরার ভোমরা সীমান্ত এলাকায় মুক্তিযোদ্ধাদের রান্নার কাজ করেছি। সেখানে ২ মাস থাকার পরে আমি জটিল রোগের কারণে বাড়িতে ফিরে আসি। একটি স্বাধীন দেশে শান্তিতে বসবাস করবো এই লক্ষ্য নিয়ে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়েছিলাম। কিন্তু ভাগ্যের চাকা আজও পরিবর্তন হয়নি।
তিনি সংসারের অভাব অনটনের কথা উল্লেখ করে গিয়ে বরেন, গত রমজান মাসে রোজা থেকে রাতে আধাপেট সেহেরী করেছি। গত ঈদের সময় মাত্র ৮ কেজি চাউল পেয়েছি। ভ্যান চালালে খাওয়া জোনে, না চালালে অনাহারে থাকতে হয়। হত দরিদ্র বসির সরদার মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি কামনা করছেন।