‌’কালিগঞ্জের ধলবাড়িয়াকে একটি ডিজিটাল ইউনিয়ন হিসেবে গড়ে তুলতে চাই’


198 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
‌’কালিগঞ্জের ধলবাড়িয়াকে একটি ডিজিটাল ইউনিয়ন হিসেবে গড়ে তুলতে চাই’
ফেব্রুয়ারি ১৮, ২০২১ কালিগঞ্জ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

কৃষ্ণ ব্যানার্জী ::

আমি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে জয়লাভ করে ধলবাড়িয়া ইউনিয়নকে একটি ডিজিটাল ইউনিয়ন হিসেবে গড়ে তুলতে চাই। ভয়েস অব সাতক্ষীরার একান্ত সাক্ষাৎকারে কালিগঞ্জ উপজেলার ধলবাড়িয়া ইউনিয়নের পল্লী চিকিৎসক হারাধন মুখার্জীর পুত্র ও আওয়ামীলীগের সভাপতি সজল মূখার্জী এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ১৯৯২ সালে উকশা মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে এসএসসি ও ১৯৯৪ সালে খুলনা সিটি কলেজ থেকে এইচ এসসি পাশ করি। পড়াশুনা করার পাশাপাশি রাজনিতিতে প্রবেশ করি।

১৯৯৩ সাল থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করি। বর্তমান দীর্ঘদিন ধলবাড়িয়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি ও কালিগজ্ঞ উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছি। এছাড়া একাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সভাপতি, হিন্দু সংগঠনের নেতাসহ অসংখ্য সামাজিক সংগঠনের নেতৃত্ব দিয়ে আসছি। শুধু তাইনয়, ১৯৯১-১৯৯৬ সাল ও ২০১৩সালে জামায়াত-বিএনপির বিরুদ্ধে সক্রিয় ভুমিকা পালন করি। মাদক -সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে এলাকায় প্রতিরোধ ও করোনা কালীন সময় জীবন বাজি রেখে তার মৃত ব্যক্তির শ্মশনে নিয়ে সৎকার করে এলাকার সবার কাছে জনদরদি নেতা হিসেবে পরিচিত হয়েছেন তিনি।

সজল মূখার্জী বলে ,দীর্ঘদিন ধলবাড়িয়া ইউনিয়নের আওয়ামীলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেও ২০১৬ সালের ২২শে মার্চ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দলীয় ভাবে মনোনয়ন না দিয়ে নৌকা প্রতিক তুলে দেওয়া হয় আ’লীগ না করে গাজী শওকাত হোসেনের হাতে। নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করে জয়ী হয়ে চেয়ারম্যান গাজী শওকাত হোসেন গড়ে তুলেছেন অপরাধ সা¤্রাজ্য। বয়স্ক,বিধবা,প্রতিবন্ধী,মৃত্যুব্যক্তি ও দেশত্যাগ বক্তিদের টাকা উত্তোলন করে গত ৫বছরে কোটি কোটি টাকার পাহাড় গেড়েছেন। চেয়ারম্যানের এই অপরাধের বিষয়ে দুর্নীতি দমন কমিশান সহ প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তারে অভিযোগ করেও অদৃশ্য কারনে কোন ফল হয়নি।

তিনি বলেন আমি বঙ্গবন্ধুর কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার হাত থেকে নৌকা প্রতীক নিয়ে এবার ইউপি নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করতে চাই।

আরো বলেন,আমি নির্বাচনে জয়লাভ করলে প্রথম কাজ হবে মাদক নির্মূল করা, রাস্তঘাট, শিক্ষ প্রতিষ্ঠান উন্নয়ন,মসজিদ,মাদ্রাসা,মন্দির, শ্মশান, গোরস্থান উন্নয়নসহ ধলবাড়িয়া ইউনিয়নকে একটি ডিজিটাল ইউনিয়নে রুপান্তরিত করতে চাই। এর জন্য সকলের দোয়া ও আর্শীবাদ কামনা করেন তিনি।