‌কোচিং বানিজ্যের সাথে জড়িত শিক্ষকদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানে সসরকার


269 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
‌কোচিং বানিজ্যের সাথে জড়িত শিক্ষকদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানে সসরকার
মে ৩, ২০১৬ ফটো গ্যালারি শ্যামনগর
Print Friendly, PDF & Email

এস কে সিরাজ,শ্যামনগর
কোচিং বানিজ্যেন সাথে জড়িত শিক্ষকদের বিরুদ্ধে সরকার কঠোর অবস্থানে। নতুন নীতিমালায় থাকছে জেল, জরিমানা এমন কি চাকুরী থেকে বরখস্তের মত শাস্তি মুলক ব্যবস্থা। এদিকে সাতক্ষীরার শ্যামনগরে  ব্যাপক কোচিং বানিজ্যে মেতে উঠেছে, সংঘবদ্ধ শিক্ষকরা। এদিকে এ সংঘবদ্ধ কোচিং শিক্ষকদের কাছে অসহায় হয়ে পড়েছে কোমলমতি ছাত্রছাত্রী সহ অভিভাবক মহল। একাধিক শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে স্কুলে যদি একটু আন্তরিকতার সাথে লেখাপড়া শিক্ষকরা করান তাহলে প্রাইভেট পড়া লাগতো না। এদিকে গুরুপ্তপুর্ন সাবজেক্ট থাকার কারনে শিক্ষকদের কাছে না পড়লে পরিক্ষার ফলাফল নিয়ে আশংকায় থাকতে হয়, শিক্ষার্থীদের। শ্যামনগর উপজেলা ব্যাপী  কিছু শিক্ষা প্রতিষ্টানের একটি সংঘবদ্ধ শিক্ষকরা সরকারী নীতিমালা উপেক্ষা করে কোচিং বানিজ্য অব্যহত রেখেছে।  বিভিন্ন পরিক্ষার ফলাফল তাদের হাতে থাকায় ইচ্ছা নাথাকার শর্তেও প্রাইভেট পড়তে হচ্ছে শিক্ষার্থীদের। বর্তমান সরকার শিক্ষকদের সকল সুযোগ সুবিধা দিয়ে শিক্ষার মানকে সর্বোচ্ছ স্থানে নিয়ে যেতে সর্বাত্বক চেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। এবিষয় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও শিক্ষামন্ত্রীর স্পষ্ট বক্তব্য সহ নীর্দেশনা থাকলে ও কতিপয় কোচিং বানিজ্যে মেতে উঠা শিক্ষকরা তার কোন ভ্রপক্ষেপ করছেন না।স্কুলের আঙ্গিনায়, নিজ বাসায় অথবা ভাড়া করা স্থানে বিশাল বিশাল হলরুম তৈরী করে সেখানে প্রকাশ্যে কোচিং বানিজ্য অব্যাহত রেখে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের নিকট থেকে কৌশলে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেয়া হচ্ছে।। এদিকে সংশ্লিষ্ট্য স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির কড়া নির্দেশনা থাকলেও, সেটিকে ও বৃদ্ধাঙ্গলি দেখানো হচ্ছে। সরেজমিনে ও একাধিক তথ্যের ভিত্তিতে জানা গেছে, শ্যামনগর উপজেলার অধিকাংশ স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসায় চলছে লাগামহীন ভাবে এ বানিজ্য । দিনে রাতে ২/৩ তিনটি করে কোচিং ব্যাচে শিক্ষার্থীদের পড়ানো হয়। কোন কর্তৃপক্ষ সামান্য একটু তৎপর হলেই দেখতে পাবেন, শ্যামনগরের রমরমা কোচিং বানিজ্যেরর আসল চেহারা। এবিষয় নকিপুর পাইলট ম্যাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ড,আব্দুল মান্নান বলেন, সরকারের নীতিমালা বর্হিভুত কোন কাজ আমার স্কুলে করতে দেয়া হবেনা। তবে স্কুলের বাহিরে কে কি করছে তা আমার জানা নেই। তবুও এ বিষয়টি আমি,  আমার স্কুলের শিক্ষকদের সাথে শিয়ার করবো।  এদিকে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তার সাথে কথা হলে তিনি বলেন, সরকারী নির্দেশনা যারা মানবে না অব্যশই তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।।