‌‌‌‌‘এইডস্ নির্মূলে সরকারের দৃঢ় অঙ্গীকার ’


335 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
‌‌‌‌‘এইডস্ নির্মূলে সরকারের দৃঢ় অঙ্গীকার ’
অক্টোবর ২৬, ২০১৫ জাতীয় ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে স্বাক্ষরকারী দেশ হিসাবে ২০৩০ সালের মধ্যে এইডস্ নির্মূলে সরকারের দৃঢ় সমর্থন ব্যক্ত করে এশিয়া এবং প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের ১২ তম আন্তর্জাতিক এইডস্ সম্মেলন (আইক্যাপ ২০১৫) আয়োজনের সার্বিক অগ্রগতি পর্যালোচনা করার জন্য এক মতবিনিময় সভা রবিবার রাজধানীর হোটেল সোনারগাঁও এ অনুষ্ঠিত হয়।

মতবিনিময় সভার আয়োজন করেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম।
সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন অর্থ মন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত এবং বিশেষ অতিথি ছিলেন শিল্প মন্ত্রী আমির হোসেন আমু, বাণিজ্য মন্ত্রী তোফায়েল আহম্মেদ, বিমান ও পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন, গৃহায়ন ও পুর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, তথ্য মন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন, বিদ্যুৎ ও জ্বালানী প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ এবং স্বাস্থ্য
ও পরিবার কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

এছাড়াও এফবিসিসিআই, বিজিএমইএ, রিহ্যাব, ঢাকা চেম্বার অব কমার্স, মেট্রো চেম্বার অব কমার্স, বাংলাদেশ ব্যাংক ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ মোবাইল ফোন অপারেটরস্ অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ ইনসুরেন্স ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ ফার্মাসিটিক্যাল অ্যাসোসিয়েশন, প্রাইভেট মেডিকেল কলেজ ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশন এর নেতৃবৃন্দ ও সরকারের উচ্চ পদ কর্মকর্তাগণ সভায় উপস্থিত ছিলেন।

সভায় প্রধান অতিথি অর্থ মন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত ১২ তম আন্তর্জাতিক এইডস্ সম্মেলন সফল করার জন্য সংশ্লিষ্ট সকল মন্ত্রণালয়কে সার্বিক সাহায্য, সহযোগিতা ও সমন্বয় সাধনের অনুরোধ জানান। এই ধরনের একটি মর্যাদাপূর্ণ সম্মেলনে সংহতি প্রকাশ ও সহযোগিতার জন্য তিনি আগত অতিথি ও ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দদের উদার্ত আহবান জানান।

এশিয়া এবং প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের ১২ তম আন্তর্জাতিক এইডস্ সম্মেলন ২০-২৩ নভেম্বর ঢাকায় বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত হবে। প্রায় ৩ হাজার বিদেশী নীতি নির্ধারক, এইডস্ বিশেষজ্ঞ, শিক্ষক, গবেষক, উন্নয়ন কর্মী, এইডস্ আক্রান্ত রোগী, আন্তর্জাতিক এনজিও এবং জাতি সংঘের বিভিন্ন সহযোগী সংস্থা সমূহের প্রতিনিধিবৃন্দ ৪ দিনব্যাপী এই সম্মেলনে অংশগ্রহণ করবেন। এইডস্ এর চিকিৎসা, এইডস্ প্রতিরোধে সামাজিক সচেতনতা বৃদ্ধি, এইডস্ আক্রান্ত রোগীদের প্রতি সকলের দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন, এইডস্ প্রতিরোধে আরও সময়োপযোগী  নিরন্তর গবেষণা চালানো এবং এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসগরীয় অঞ্চল থেকে চিরতরে এইডস্ নির্মূল করা এই আন্তর্জাাতিক সম্মেলনের অন্যতম লক্ষ্য। বাংলাদেশের ইতিহাসে এটাই সবচেয়ে বড় আন্তর্জাতিক সম্মেলন। বৃহৎ পরিষরের এই সম্মেলনের সফলতা বাংলাদেশের বিভিন্ন সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানকে এই ধরনের গুরুত্বপূর্ণ আন্তর্জাতিক সম্মেলন আয়োজনের ব্যাপারে আরও উৎসাহিত করবে বলে সংশ্লিষ্ট ক্ষেত্রের বিশেষজ্ঞ ও আয়োজকরা মনে করেন।

সম্প্রতি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমেরিকায় টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে তাঁর সরকারের দৃঢ় অঙ্গীকার ব্যক্ত করে আগামী ২০৩০ সালের মধ্যে বাংলাদেশ থেকে এইডস্ নির্মুলের ঘোষণা দিয়েছেন। এই সম্মেলনের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে তা পুর্নব্যক্ত করার সুযোগ তৈরি হবে।
পর্যটকদের জন্য বাংলাদেশ খুব আকর্ষনীয় স্থান। সম্মেলনে আগত ৩ হাজার বিদেশী অংশগ্রহণকারীর নিকট বাংলাদেশের অর্থনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও স্বাস্থ্য খাতের বিভিন্ন সফলতা আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে তুলে ধরা হবে।–প্রেস বিজ্ঞপ্তি :