সাতক্ষীরা জেলা সম্পর্কিত কিছু তথ্য


326 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly
সাতক্ষীরা জেলা সম্পর্কিত কিছু তথ্য
এপ্রিল ৬, ২০১৭ ইতিহাস ঐতিহ্য ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly

শাহিদুর রহমান (শাহিন) ::
বাংলাদেশের ৬৪টি জেলার মধ্যে আমাদের সাতক্ষীরা জেলা অন্যতম।
(১) মুক্তিযুদ্ধের সময় বাংলাদেশের ২য় শত্রুমুক্ত জেলা হলো- সাতক্ষীরা।
(২) সাতক্ষীরা জেলা প্রতিষ্ঠিত
হয়-১৯৮৪ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি।
(৩) বাংলাদেশের সবচেয়ে বড়
উপজেলা- সাতক্ষীরা শ্যামনগর
উপজেলা।
(৪) সাতক্ষীরা জেলার: আয়তন- ৩৮৮৪ বর্গকিঃমিঃ।
(৫) সাতক্ষীরা জেলার উপজেলা-৭টি এবং থানা ৮টি।
(৬) সাতক্ষীরা জেলার ইউনিয়ন -৭৯টি।
(৭) সাতক্ষীরা জেলার পৌরসভা-২টি। যথা- সাতক্ষীরা সদর ও কলারোয়া।
(৮) সাতক্ষীরা জেলার গ্রাম -১৪৮০টি।
(৯) ভোমরা স্থলবন্দর অবস্থিত – সাতক্ষীরা জেলায়।
(১০) সিকান্দার আবু জাফর জন্মগ্রহণ করেন- সাতক্ষীরা জেলার তালা উপজেলার তেঁতুলিয়া গ্রামে।
(১১) লেখক সাহিত্যিক মোহাম্মদ ওয়াজেদ আলি জন্মগ্রহণ করেন- সাতক্ষীরা সদর উপজেলার বাঁশদহা
গ্রামে।
(১২) দেশের প্রথম ভাসমান বিজিবি ক্যাম্প চালু করা হয়- সাতক্ষীরা জেলায়।
(১৩) বাংলাদেশের ২য় সর্বোচ্চ দুধ উৎপাদন কারী জেলা- সাতক্ষীরা।
(১৪) বাংলাদেশের দুধ এর গ্রাম বলা হয়-সাতক্ষীরা জেলার তালা উপজেলার জিয়ালা গ্রামকে।
(১৫) সাতক্ষীরা জেলা যে কারণে বিখ্যাত-কুল, মাদুর,গাছের কলম,
আম,ওল,মাছ, ঘোল ও সুন্দরবন এর খাঁটি মধু।
(১৬) সাতক্ষীরা জেলার বিখ্যাত খাবার- সাতক্ষীরা ঘোষ ডেইরীর “সন্দেশ”।
(১৭) ঐতিহাসিক ব্যক্তিত্ব খানবাহাদুর আহসানউল্লাহ (নলতা সাতক্ষীরা)
(১৮) হোয়াইট গোল্ডের দেশ বলা হয় যৌথভাবে- সাতক্ষীরা, খুলনা ও বাগেরহাটকে।
(১৯) সাতক্ষীরা জেলার সাক্ষরতার হার- ৬৬%।
(২০) সাতক্ষীরা জেলার সাক্ষরতার আন্দোলনের নাম “উদ্দীপ্ত সাতক্ষীরা”।
(২১) সাতক্ষীরা জেলার কৃতি সন্তান-ডাঃ এম আর খান,আবেদ খান,সাবিনা
ইয়াসমিন, আমিন খান,ডাঃ আফম রুহুল হক,মৌসুমী,সৌম্য সরকার,মুস্তাফিজুর রহমান,
রবিউল ইসলাম,সাবিনা
খাতুন,ডাঃ সহিদুল আলম।
(২২) সাতক্ষীরা জেলার দর্শনীয় স্থান সমূহ– সুন্দরবন,দেবহাটার বনবিবির বটগাছ, মন্টু মিয়ার বাগান বাড়ী, জাহাজমারী, মান্দারবাড়ীয়া সমুদ্র সৈকত।
(২৩) বাংলাদেশ জাতীয় ভলিবল দলের অধিনায়ক-সাইদ আল জাবির রাজেশ (কলারোয়া)।
এসব কারণে আমরা আমাদের সাতক্ষীরাকে নিয়ে গর্ব করতে পারি।।