কয়রায় মাদরাসা উপাধ্যক্ষ হত্যার রহস্য আজও উদঘাটন হয়নি


50 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly
কয়রায় মাদরাসা উপাধ্যক্ষ হত্যার রহস্য আজও উদঘাটন হয়নি
জুলাই ১৬, ২০১৭ খুলনা বিভাগ ফটো গ্যালারি
Print Friendly

কয়রা(খুলনা)প্রতিনিধি ::
কয়রা সিদ্দিকীয়া ফাযিল মাদরাসার উপাধ্যক্ষ মাওলানা আব্দুল হাইকে দুর্বৃত্তরা গত ১৩ জুলাই রাতে নিজ বাড়িতে জবাই করে হত্যা করলেও হত্যার প্রকৃত রহস্য এখনো উদঘাটন করতে পারেনি পুলিশ। এ ব্যাপারে নিহতের ছোট ভাই মাওলানা আব্দুস সাত্তার বাদী হয়ে কয়রা থানায় একটি হত্যা মামলা দাখিল করেছেন। যার মামলা নং ১৫ তাং ১৩/৭/১৭ ইং। মামলায় উপাধ্যক্ষের ছোট স্ত্রী শাহানারা সুলতানা বেবি সহ ৪ জনের নাম সন্দেহভাজন হিসেবে উল্লেখ করেছেন। আলোচিত এ হত্যাকান্ডের ৪ দিন অতিবাহিত হলেও পুলিশ হত্যার সঠিক রহস্য এখনো বের করতে পারেনি। তবে ঘটনার রহস্য উদঘাটনের জন্য পুলিশ জোর প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। ইতমধ্যে পুলিশ নিহত উপাধ্যক্ষের ছোট স্ত্রীকে নজরদারিতে রেখে সন্দেহজনকভাবে কয়েকজনকে জিজ্ঞাসাবাদ অব্যাহত রেখেছেন। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই কামরুল ইসলাম জানান, উপাধ্যক্ষ হত্যা মামলার প্রকৃত আসামীদের খুঁজে বের করতে সন্দেহভাজনদের জিজ্ঞাসাবাদ অব্যাহত রয়েছে।
এদিকে, নিহত উপাধ্যক্ষের বড় স্ত্রীর বড় পুত্র মোস্তাকিম জানায়, গত বছর তার পিতা ছোট স্ত্রী শাহানারা সুলতানা বেবির নামে খুলনার কৈয়া বাজারের পাশে কিছু জমি কিনে দেন। এ জন্য দুই পরিবারের মধ্যে সমতা রক্ষা করতে ৪নং কয়রার পৈত্রিক বসতভিটা থেকে কিছু জমি বড় স্ত্রীর তিন পুত্রের নামে রেজিষ্ট্রি করার দিন ধার্য করেন। কিন্তু তাতে বাঁধা হয়ে দাঁড়ায় উপাধ্যক্ষের ছোট স্ত্রী ও দুই পুত্র। এ নিয়ে মুত্যুর আগের দিন দিনভর উপাধ্যক্ষের সাথে ছোট স্ত্রীর ব্যাপক ঝগড়াঝাটি হয়েছে। এলাকাবাসীর ধারনা পারিবারিক জায়গা জমির ঘটনাকে কেন্দ্র করে তিনি নির্মমভাবে খুন হতে পারেন।
এ ব্যাপারে কয়রা থানা অফিসার ইনচার্জ মোঃ এনামুল হক বলেন, হত্যার মোটিভ উদঘাটনের জন্য সন্দেহভাজন বিভিন্ন জনকে ডেকে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। তবে ঘটনার সাথে জড়িত কাউকে আটক করা সম্ভব হয়নি।