পাটকেলঘাটায় কুলচাষ করে অনেকেই সাবলম্বী


475 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
পাটকেলঘাটায় কুলচাষ করে অনেকেই সাবলম্বী
ডিসেম্বর ৮, ২০১৭ কৃষি তালা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

অমিত কুমার, পাটকেলঘাটা ::
চাষ পদ্ধতি শেখানোর জন্যে কর্মশালাও নেই। সরকারি সহায়তা নেই। চারা কিনতে গিয়ে ঠকতেও হয়েছে। এত কিছুর পরেও লাভের মুখ দেখেছেন আপেল কুলের চাষিরা। পাটকেলঘাটায় আপেল কুল চাষ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। এবারের মরসুমে গ্রামের বেশির ভাগ চাষিই আপেল ও নারিকেল কুল চাষ করতে চাইছেন।
পাটকেলঘাটার মিঠাবাড়ি গ্রামের আলু চাষি মোঃ সাইফুল ইসলাম আলুখেত থেকে মাত্র ১০ কাঠা জমি নিয়ে পরীক্ষা করার ভঙ্গিতে আপেল ও নারিকেল কুলের চাষ শুরু করেছিলেন। সেই প্রচেষ্টাতেই সোনা ফলেছে তাঁর। প্রায় ১২ কুইন্টাল কুল ফলিয়ে গ্রামের সকলকে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন তিনি।
পাটকেলঘাটা থানার বাইগুনি,মিঠাবাড়ি,শাকদাহ,খলিষখালি, কুমিরা,নওয়াপাড়া,মির্জাপুর, ধানদিয়া,সরুলিয়া ও বিভিন্ন এলাকায় আপেল কুল চাষ আলোচনার বিষয়ও হয়ে উঠেছে। এবারে আগামী মরসুম শুরু হওয়ার আগে থেকেই গ্রামের চাষিদের মধ্যে অনেকেই আপেল কুল চাষ করবেন বলেও সিদ্ধান্ত নিয়েছেনন।
সাইফুল ইসলামের কথাই, “গত মরসুমে পাশের গ্রামের দুই একজন চাষিকে আপেল কুল চাষ করতে দেখি। গাছ ফলে ভরে যাওয়ার পর ভাল দামও মিলেছে বলে জানতে পারি। ২০১৫ সালের মার্চ মাসেই খোঁজ খবর নিয়ে , নিজ জেলা সাতক্ষীরা থেকে চারা আনতে চলে যাই। সাতক্ষীরা থেকে চারা প্রতি ৮০ টাকা করে দাম দিয়ে ৭০টিরও বেশি চারা আনেন তিনি। এপ্রিল মাসের শুরুতেই চারা লাগিয়ে বাগানের পরিচর্যা শুরু করেন তিনি। অক্টোবরের শেষ দিক থেকেই গাছে ফুল সহ ফল দেখা যেতে থাকে। এর পর নভেম্বর থেকে ফেব্রুয়ারি একটানা ফল মিলেছে। এবছরও গাছে প্রচুর কুল ধরেছে। গড়ে একটি গাছ থেকেই ২০ কেজি করে ফল পেয়েছেন তিনি।
পাটকেলঘাটার আরেক আপেল কুলের চাষি বাইগুনি গ্রামের মোঃ তহিদুর রহমান একেকটি গাছ থেকে ২০ থেকে ২৫ কেজি করে ফল পেয়েছেন। সাতক্ষীরা সহ পাটকেলঘাটার পাইকারি ফল ব্যবসায়ীরা নিজেরাই কৃষকের সাথে যোগাযোগ করে ৩০ থেকে ৪০ টাকা কেজি দরে ফলও কিনে নিয়েছেন বলে জানান তাঁরা। মার্চ মাস পড়তেই চা গাছের মতো করে গাছকে ছেঁটে দিয়ে পরিচর্যা করলেই ফের একই হারে আগামী বছরেও ফল মিলবে বলে চাষিরা জানান। বহুবর্ষজীবি এই আপেল ও নারিকেল কুল যে লাভদায়ক চাষ তা চাষিরা নিজেরা নিজেদের মত করে বুঝে নিয়েছেন। জেলা,থানা স্তর থেকে কোনও সাহায্য বা পরামর্শ মেলেনি।