কালিগঞ্জ সংবাদ ॥ শিক্ষক-কর্মচারী সংগ্রাম কমিটির মানববন্ধন ও স্মারকলিপি পেশ


154 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
কালিগঞ্জ সংবাদ ॥ শিক্ষক-কর্মচারী সংগ্রাম কমিটির মানববন্ধন ও স্মারকলিপি পেশ
জানুয়ারি ৯, ২০১৮ কালিগঞ্জ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

কালিগঞ্জ (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধি ::
শিক্ষা ব্যবস্থা জাতীয়করণসহ ১১ দফা দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ কর্মসূচি পালনের পর কালিগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসারের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেছে শিক্ষক-কর্মচারী সংগ্রাম কমিটি। কলেজ শিক্ষক ও কর্মচারীদের ৯ টি সংগঠনের সমন্বয়ে গঠিত মোর্চার উদ্যোগে গৃহীত দেশব্যাপী কর্মসূচির অংশ হিসেবে মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১২ টায় উপজেলা পরিষদ চত্ত্বরে এই কর্মসূচি পালিত হয়। বাংলাদেশ কলেজ শিক্ষক সমিতি কালিগঞ্জ উপজেলা শাখার সভাপতি ও শিক্ষক-কর্মচারী সংগ্রাম কমিটির সমন্বয়কারী রোকেয়া মনসুর মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ একেএম জাফরুল আলম বাবুর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক সহকারী অধ্যাপক নিয়াজ কওছার তুহিনের সঞ্চালনায় মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল কর্মসূচিতে বক্তব্য রাখেন ডিআরএম ইউনাইটেড আইডিয়াল কলেজের অধ্যক্ষ শেখ আবুল বাসার। শিক্ষা ব্যবস্থা জাতীয়করণের দাবি বাস্তবায়ন করে শিক্ষা ক্ষেত্রে উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপনের জন্য বর্তমান শিক্ষাবান্ধব সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিকট উদাত্ত আহবান জানিয়ে বক্তব্য রাখেন রোকেয়া মনসুর মহিলা কলেজের সহকারী অধ্যাপক শ,ম মমতাজুর রহমান, ডিআরএম ইউনাইটেড আইডিয়াল কলেজের প্রভাষক কামরুল ইসলাম, কাজী আলাউদ্দীন ডিগ্রী কলেজের প্রশান্ত রায়, কুশলিয়া স্কুল এন্ড কলেজের আইয়ুব আলী গাজী, ডিআরএম ইউনাইটেড আইডিয়াল কলেজের কর্মচারী আবু বক্কর প্রমুুখ। পরে নেতৃবৃন্দ উপজেলা নির্বাহী অফিসার গোলাম মাঈনউদ্দিন হাসানের নিকট প্রধানমন্ত্রী বরাবর প্রদানের জন্য স্মারকলিপি হস্তান্তর করেন। এসময় উপজেলার বিভিন্ন কলেজে কর্মরত শিক্ষক-কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

##
কালিগঞ্জে একাধিক মামলার ফেরারী
আসামী নুরুলকে আটক করেছে পুলিশ

কালিগঞ্জ (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধি ::
কালিগঞ্জে একাধিক মামলার ফেরারী আসামী নুরুল ইসলাম অরফে নুরুল ডাকাত (৪৩) কে আটক করেছে পুলিশ। সে উপজেলার বিষ্ণুপুর ইউনিয়নের বন্ধকাটি গ্রামের মৃত আরশাদ আলী মোড়লের পুত্র। থানা ও স্থানীয় সূত্রে জানাগেছে, কালিগঞ্জ উপজেলা এলাকাসহ বিভিন্ন এলাকায় ঘের লুট, জমি দখল, চাঁদাবাজিসহ একাধিক অভিযোগে বিভিন্ন থানায় একাধিক মামলা রয়েছে তার বিরুদ্ধে। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে থানা পুলিশ ৯ জানুয়ারী দুপুরে গোয়াল ঘেষিয়া নদীর পাড়ে তার গোপন আস্থানায় হানা দিয়ে আটক করতে সক্ষম হয়। ইতিপূর্বে পুলিশ বহুবার অভিযান চালালেও তাকে ধরতে পারেনি। নুরুল মোড়ল আটকের বিষয়টি কালিগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ সুবীর দত্তের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, নুরুল এলাকায় অবস্থান করছে জানতে পেরে অস্ত্র উদ্ধারের জন্য তাকে ধরতে পুলিশ পাঠিয়েছিলাম। অনেক চেষ্ঠার পর তাকে আটক করা সম্ভব হয়েছে। তার বিরুদ্ধে থানায় একাধিক মামলা আছে কিন্তু জামিনে আছে কিনা সেটা রেকর্ডপত্র যাঁচাই না করে কিছুই বলা যাবে না। আমি থানার বাহিরে অবস্থান করায় এই মুহুর্ত্বে কিছুই বলতে পারছিনা। নুরুল আটকের বিষয়টি স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান শেখ রিয়াউদ্দিনের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন নুরুল লোক ভাল না।
##

কালিগঞ্জে জমি ডিড নিয়ে
বিপাকে পড়েছে ঘের ব্যবসায়ি

কালিগঞ্জ (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধি ::
কালিগঞ্জে মাছের ঘের করতে জমি লীজ নিয়ে বিপাকে পড়েছে এক ঘের ব্যবসায়ি। সে উপজেলার তারালী ইউনিয়নের কাঁকশিয়ালী গ্রামের মৃত জাকির খন্দকারের ছেলে মিলন খন্দকার। সরেজমিনে যেয়ে ভূক্তিভোগি সূত্রে জানা যায়, ২০১৮ সালে তারালী বিলে ১ জানুয়ারি থেকে তিন বছরের জন্য ৬ বিঘা ১৫ শতক জামি মাছ চাষের জন্য লীজ গ্রহন করেন মিলন খন্দকার। এদিকে ঐ লীজকৃত জমিতে ডিড না নিয়ে মৌখিকভাবে দীর্ঘদিন মাছের ঘের করে আসছিলেন একই ইউনিয়নের আমিয়ান গ্রামের মৃত সূর্য্যকান্ত ঘোষের ছেলে অরবিন্দু ঘোষ। কিন্ত বিগত ঘের মালিক জমির হারির টাকা ও তাদের সাথে খারাপ ব্যবহার করায় চলতি বছরের শুরুতেই ১২ জন জমির মালিক ৬ বিঘা ১৫ শতক জমি কাঁকশিয়ালী গ্রামের মিলন খন্দকারের কাছে তিন বছরের জন্য ডিড প্রদান করেন। ঘেরের ডিড ভিন্ন ব্যক্তির নামে দেওয়া হয়েছে বিষয়টি জানতে পেরে ঘের মালিক অরবিন্দু ঘোষ চক্রান্ত শুরু করে এবং থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগের প্রেক্ষিতে থানার উপ-পরিদর্শক লিয়াকত আলী উভয়পক্ষকে ২ জানুয়ারি থানায় ডেকে উভয়পক্ষকে কাগজপত্র দেখাতে বলেন। সাবেক ঘের মালিক কোন ধরণের কাগকপত্র দেখাতে না পারায় তাকে ঘের ছেড়ে দেওয়ার জন্য বলেন থানার উপ-পরিদর্শক। জমির মালিক আমিয়ান গ্রামের মৃত গৌরপদ ঘোষের ছেলে দিপু চন্দ ঘোষ, একই গ্রামের মৃত পুলিন ঘোষের ছেলে মনোরঞ্জন ঘোষ, মৃত শৈলেন ঘোষের ছেলে চন্দ্র কান্ত ঘোষ, গোপাল ঘোষের ছেলে সূর্য্যকান্ত ঘোষ, বুধুনাথ ঘোষের ছেলে আশুতোষ ঘোষ, মৃত গন ঘোষের ছেলে বিশ্বনাথ ঘোষ, মৃত শতিন্দ্র ঘোষের ছেলে জয়ন্ত ঘোষ, মৃত গোপাল ঘোষের স্ত্রী সাবিত্রী ঘোষ, মৃত বসুনাথ ঘোষের ছেলে সুবোল চন্দ্র ঘোষ, গৌরপদ ঘোষের ছেলে শ্রীবাস ঘোষ ও দিলীপ ঘোষ ও ভাড়াশিমলা ইউনিয়নের নারায়নপুর গ্রামের মৃত নাজির গাজীর ছেলে আলাউদ্দিন গাজী বলেন, অরবিন্দু ঘোষ আমাদের জমির হারি নিয়ে টাকা দেয় না বিধায় আমরা সবাই মিলন খন্দকারকে লীজ দিয়েছি। কালিগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক লিয়াকত আলী বলেন, কাগজপত্র ও ডিড না দেখাতে পারায় অরবিন্দু ঘোষকে নিয়ম অনুযায়ি জমি ছেড়ে দিতে বলা হয়েছে। থানা চত্ত্বরের বিচার স্থালে সাবেক ঘের মালিক এক বছরের জন্য ঘের পুনরায় করার দাবী জানালে জমির মালিকগন অরবিন্দু কে জমি দিবে না বলে সাপ জানিয়ে দিয়ে থানা থেকে চলে যায়। একদিন পর জমির মালিকগন জমির মাপ জরিপান্তে নিজেদের জমি ভেড়ী বাঁধ দিয়ে দখলে নেয়। অরবিন্দু ঘোষ উপায়ন্তর না পেয়ে কিছু কুচক্রি ব্যক্তিদের পরামর্শে উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলামের বিরুদ্ধে মনগড়া কাল্পনিক একটি নিউজ পত্র পত্রিকায় ছাপায়। সংখ্যালঘুদের মাছের ঘের দখল সর্ম্পকে ডিডকৃত ঘের মালিক মিলন খন্দকারের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ১৩ জন জমির মালিক দীর্ঘদিন তাদের জমির হারির টাকা না পেয়ে আমার কাছে জমি লীজ দিয়েছে। মাপজরিপ শেষে তাদের রেকর্ডিও জমির সীমানা বুঝে নিয়ে আমি ভেড়িবাঁধ দিয়েছি। তবে মাছের ঘেরটি আমি লীজ নেওয়ায় ক্ষিপ্ত হয়ে সাবেক ঘের মালিক সাংবাদিকদের ভুল তর্থ দিয়ে উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ভাইয়ের নামে মিথ্যা আভিযোগ এনে দলীয় ভাবমুক্তি নষ্ট করেছে এটা খুবই দুঃখ জনক। আমার মাছের ঘেরের সাথে তার কোন সংশ্লিষ্ঠতা নেই বা ছিল না। উপ-পরিদর্শক লিয়াকত আলীর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, চলতি মাসের দুই তারিখে তারালী বিলের ঘের ব্যবসায়ি অরবিন্দু ঘোষের একটি অভিযোগে ভিত্তিতে উভয়পক্ষকে থানায় ডেকেছিলাম, কিন্তু জমির মালিকগন তাদের জমির হারির টাকা না পাওয়ায় তারা অরবিন্দুকে ঘের করা জন্য তাদের জমি দিতে রাজি হয়নি। আইনসিদ্ধ ভাবে জমির মালিকগন যাকে ঘেরের ডিড দেবে সেই ব্যক্তিই ঘের করবে। তাই মিলনকে জমির মালিকদের কাছ থেকে ঘের বুঝে নিতে বলা হয়েছিল।

##