সংসদ বৈঠকে এমপিদের উপস্থিতি কম


113 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সংসদ বৈঠকে এমপিদের উপস্থিতি কম
জানুয়ারি ১২, ২০১৮ জাতীয় ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন ডেস্ক ::
বছরের প্রথম ও দীর্ঘ অধিবেশন শুরুর মাত্র চার দিনের মাথায় বৃহস্পতিবার সংসদে এমপিদের অনুপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো। সাংসদদের উপস্থিতি এতটাই কম ছিল যে, কোরাম পূর্ণ হওয়ার জন্য ৬০ জন সদস্যও উপস্থিত ছিলেন না। তবে কেউ স্পিকারের দৃষ্টি আকর্ষণ না করায় সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার পর থেকে কোরাম ছাড়াই সংসদের বৈঠক চলে।

এর আগে বিকেল সাড়ে ৪টায় স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদের বৈঠক শুরু হয়। মাগরিবের বিরতির পরে সভাপতির আসনে বসেন ডেপুটি স্পিকার অ্যাডভোকেট ফজলে রাব্বী মিয়া।

সন্ধ্যার পরে বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী ও সংসদ নেতা শেখ হাসিনার উপস্থিতির সময় শতাধিক সাংসদ বৈঠকে ছিলেন। তবে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার পরে অধিবেশন কক্ষের সামনের সারিতে ছিলেন একমাত্র কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী।

বৃহস্পতিবার ছিল বেসরকারি দিবস। মাগরিবের নামাজের বিরতির পর অধিবেশন শুরু হলে প্রশ্নোত্তর পর্ব শেষ হয়। এরপর ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বী মিয়া ৭১ বিধিতে জরুরি জন-গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে মনোযোগ আকর্ষণ বিধির নোটিশগুলো নিষ্পত্তি করেন। এতে তিনি ১৫ জন নোটিশদাতাকে দুই মিনিট করে বক্তব্য দেওয়ার জন্য নাম ডাকতে শুরু করেন। তবে এদের মধ্যে অর্ধেকের বেশি সদস্য ছিলেন অনুপস্থিত।

এরপর বেসরকারি সদস্যদের সিদ্ধান্ত প্রস্তাব উত্থাপিত হলে উপস্থিত সদস্য সংখ্যা স্পিকারসহ ছিলেন ৫৮ জন। মন্ত্রীদের মধ্যে এ সময় কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী, শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান উপস্থিত ছিলেন। এর বাইরে টেকনোক্র্যাট মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসিও উপস্থিত ছিলেন। পরে রাত ৮টায় উপস্থিতির সংখ্যা আরও কমে যায়।

সংবিধান অনুযায়ী ন্যুনতম ৬০ সদস্য উপস্থিত না থাকলে কোরাম সংকট হয়। তবে বিষয়টি কোনো সদস্যকে সংসদে উত্থাপন করতে হয়। কোরাম হওয়ার জন্য স্পিকার ৫ মিনিট ধরে ঘণ্টা বাজানোর নির্দেশ দেবেন। এর মধ্যে কোরাম না হলে তিনি অধিবেশন মুলতবি রাখবেন।

দিনের কার্যসূচিতে দেখা যায়- বেসরকারি সদস্যদের সিদ্ধান্ত প্রস্তাব জমা দিয়েছিলেন পাবনার সংসদ সদস্য শামসুল হক টুকু, চট্টগ্রামের মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী ও দিদারুল আলম, ঢাকার এম এ মালেক এবং ফেনীর রহিম উল্লাহ। এর মধ্যে এম এ মালেক ও রহিমউল্লাহ ছাড়া অন্য তিনজন অনুপস্থিত ছিলেন। এমনকি প্রশ্নোত্তর পর্বেও একাধিক সাংসদ অনুপস্থিত ছিলেন।

দিনের সর্বশেষ কার্যসূচি রাষ্ট্রপতির ভাষণের ওপর ধন্যবাদ প্রস্তাবের আলোচনায় একমাত্র সদস্য বগুড়া থেকে নির্বাচিত আবদুল মান্নান বক্তব্য রাখেন। এরপর রাত ৮টা ২০ মিনেটে সংসদের বৈঠক মুলতবি করা হয়।

বৈঠক শেষে ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বী মিয়ার কক্ষে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি। তবে সংসদ সচিবালয়ের একাধিক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, দিনের কার্যসূচিতে রাষ্ট্রপতির ভাষণের ওপর আরও বক্তা নির্ধারিত ছিলেন। কিন্তু কোরাম নেই জানতে পেরে ডেপুটি স্পিকার বৈঠক মুলতবি ঘোষণা করেন।