আশাশুনি সংবাদ ॥ ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে নববর্ষ পালন


125 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
আশাশুনি সংবাদ ॥ ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে নববর্ষ পালন
এপ্রিল ১৫, ২০১৮ আশাশুনি ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

গোপাল কুমার মন্ডল, আশাশুনি ::
আশাশুনিতে ব্যাপক উৎসাহ ও উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে বাঙালীর প্রাণের উৎসব পহেলা বৈশাখ বাংলা নববর্ষ-১৪২৫ উদযাপিত হয়েছে। ছোট-বড়, নারী-পুরুষ সবাই নববর্ষে বিশেষ সাঁজে সজ্জিত হয়ে উৎসবে অংশ গ্রহণ করেন।

আশাশুনি উপজেলা প্রশাসন : ৭.৩০ টায় বর্ণাঢ্য মঙ্গল শোভাযাত্রা বের করে। উপজেলা পরিষদ চত্বর থেকে শোভাযাত্রা শুরু হয়ে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে পুনরায় পরিষদ চত্বরে গিয়ে শেষ হয়। ৮ টায় সকলের মাঝে পান্তা ভাত পরিবেশন করা হয়। ৯ টায় শিশু পার্ক মঞ্চে আলোচনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান করা হয়। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাফফারা তাসনীন অনুষ্ঠানের শুভ উদ্বোধন করেন। ইউআরসি ইন্সট্রাক্টর মহিতোষ কর্মকারের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে আশাশুনি সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ ড. মিজানুর রহমান, সহকারী কমিশনার (ভূমি) মিজাবে রহমত, পুলিশ পরিদর্শক (ওসি) মোস্তাফিজুর রহমান, পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) আখতারুজ্জামান, সকল সরকারি কর্মকর্তা, ইউপি চেয়ারম্যান স ম সেলিম রেজা মিলন, ইঞ্জিঃ আ ব ম মোছাদ্দেক, সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আঃ হান্নান, আশাশুনি প্রেসক্লাব উপদেষ্টা একেএম এমদাদুল হক, প্রেসক্লাব ও উপজেলা রিপোর্টার্স ক্লাব নেতৃবৃন্দ, মাধ্যমিক বিদ্যালয় সমিতির নেতৃবৃন্দ অংশ নেন। তবে শিক্ষকরা নববর্ষের বোনার্স না পাওয়ায় কালো ব্যাচ ধারণ করেন। এরপর র‌্যাফেল ড্র, মহিলা ও পুরুষদের হাড়িভাঙ্গা, উপজেলা পরিষদ ও প্রশাসনের মধ্যে প্রীতি ক্রিকেট খেলা অনুষ্ঠিত হয়।
শ্রীউলার নাকতাড়া কালিবাড়ি : সকালে বাজার চত্বর থেকে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের করা হয়। মাড়িয়ালা মাধ্যমিক বিদ্যালয়, কলিমাখালী প্রাথমিক বিদ্যালয়, বকচর প্রা/বি, নাকতাড়া প্রা/বি, বুড়াখারাটি প্রা/বি, কলিমাখালী প্রি-ক্যাডেট স্কুলের শিক্ষক ও ছাত্রছাত্রীদের অংশ গ্রহনে শোভাযাত্রাটি মাড়িয়ালা মৎস্য সেট ঘুরে পুনরায় নাকতাড়া বাজারে গিয়ে শেষ হয়। এখানে পান্তা ভাত পরিবেশন করা হয়। এসময় শ্রীউলা ইউপি চেয়ারম্যান আবু হেনা সাকিল, রেডিঃ ও ফ্রেন্ডশীপ ক্লাব সভাপতি উজ্জল মাহমুদ, ইউপি সদস্য ইয়াছিন আলি, ওলিউল্লাহ, জালাল উদ্দিন, আক্তার হোসেন, নাজমুল, ঠিকাদার আঃ সালাম, আবু হেনা শামীম, মোস্তফা কামাল, জাহাঙ্গীর, রবিউল মোড়ল, শিক্ষক হিমাংশু মিশ্র, ইলিয়াছ হোসেন, সঞ্জয় মিশ্র, মন্টু মন্ডল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
আনুলিয়া ১নং ওয়ার্ড : আনুলিয়া ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের যুব সমাজের উদ্যোগে দিব ব্যাপী অনুষ্ঠান মালার আয়োজন করা হয়। ইউপি সদস্য ইনামুল হোসেনের তত্ত্বাবধানে অন্যান্য আয়োজনের পাশাপাশি ক্রীড়া প্রতিযোগিতা, লাঠিখেলা, কবিতা আবৃত্তি, সঙ্গীতানুষ্ঠান করা হয়। আলহাজ¦ এস এম জোনাব আলি সরদারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বীরমুক্তিযোদ্ধা মতিয়ার রহমানসহ গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।
বুধহাটা আঞ্চলিক প্রেসক্লাব : পহেলা বৈশাখ নববর্ষ উপলক্ষে প্রেসক্লাব কার্যালয়ে আলোচনা সভা করা হয়। সভাপতি এস এম আমীর হামজার সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন, প্রধান পৃষ্ঠপোষক ইউপি চেয়ারম্যান ইঞ্জিঃ আ ব ম মোছাদ্দেক। অন্যদের মধ্যে সাবেক সভাপতি সচ্চিদানন্দদে সদয়, সাধারণ সম্পাদক হাসান ইকবাল মামুন, যুগ্ম সম্পাদক এসকে হাসান, গোলাম মোস্তফা, বিকাশ চন্দ্র বাছাড়, জ¦লেমিন হোসেন, শেখ আরাফাত প্রমুখ আলোচনা রাখেন।
##

আনুলিয়ায় ঘুষ বাণিজ্যের মাদরাসা নিয়োগ পরীক্ষা বন্ধের দাবীতে মানববন্ধন
গোপাল কুমার মন্ডল, আশাশুনি ::
আশাশুনি উপজেলার আনুলিয়ায় মদিনাতুল উলুম ফাজিল (স্নাতক) মাদরাসায় লক্ষ লক্ষ টাকা ঘুষ বাণিজ্যের মাধ্যমে নিয়োগ কার্যক্রম বন্ধের দাবীতে মানববন্ধন করা হয়েছে। ১৪ এপ্রিল মাদ্রাসা প্রাঙ্গনে মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়। মানববন্ধন চলাকালে লিখিত বক্তব্য সরবরাহ করে মাদরাসা গভর্নিং বডির বিদ্যোৎসাহী সদস্য ও ইউপি সদস্য এনামুল হোসেন বলেন, মাদরাসায় শূন্যপদে অধ্যক্ষ, উপাধ্যক্ষ, অফিস সহকারী কাম হিসাব সহকারী, দপ্তরী, মালী, নৈশ প্রহরী নিয়োগ দানের জন্য পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। কিন্তু প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তিতে ভুল পরিলক্ষিত হলে বিষয়টি গভর্নিং বডির সভাপতি (অতিঃ জেলা প্রশাসক (সার্বিক) ও তৎকালীন ভারপ্রাপাপ্ত অধ্যক্ষ অলি উল্লাহর দৃষ্টি আকর্ষন করা হয়। তখন পুনরায় সংশোধনী বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করার মৌখিক সিদ্ধান্ত দেয়া হয়। কিন্তু উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার বাধা প্রদান করেন। এরপর ভুল বিজ্ঞপ্তিতে অনুপ্রাণিত হয়ে নিয়োগ বিধি অনুযায়ি যাদের দরখাস্তের সুযোগ নেই তারাসহ অনেকে আবেদনপত্র জমা দেন। এসুযোগে সংশ্লিষ্ট চক্র নিয়োগদানের চুক্তিতে ৬০ লক্ষ টাকা ঘুষ বাণিজ্য করেছে। অনিয়ম, দুর্নীতি ও নিয়োগ বাণিজ্যের বিরুদ্ধে গত ১৮ ও ২০ ফেব্রুয়ারি দৈনিক কালেরচিত্র পত্রিকায় খবর প্রকাশিত হয়। এছাড়া বিদ্যোৎসাহী সদস্য মাহামান্য হাইকোর্ট বিভাগের বিজ্ঞ আইনজীবির মাধ্যমে নিয়োগ বোর্ডেন সকল সম্মানিত সদস্যসহ সংশ্লিষ্টদের রেজিস্ট্রীযোগে ২১/৩/১৮ তাং লিগ্যাল নোটিশ প্রদান করেন। এতকিছুর পরও মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার বাকী বিল্লাহ ও মাদরাসার ডিজি প্রতিনিধি ও ঢাকা আলিয়া মাদরাসার ভাইস প্রিন্সিপ্যাল (যিনি এই এলাকার রাজাকার ও যুদ্ধাপরাধী এলাই বক্স সরদারের ভাই) আঃ রশিদের সহযোগিতা নিয়ে নিয়োগ কার্যক্রম চালানোর প্রস্তুতি নিয়েছেন। নাশকতা মামলার আসামী ইবতেদায়ী শিক্ষক (ডিজি প্রতিনিধির আরেক ভাই) তৈয়েবুর রহমান, সাবেক ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ অলিউল্লাহ (যিনি অধ্যক্ষ পদে প্রার্থী) সুকৌশলে সম্মানিত সভাপতিকে ভুল বুঝিয়ে রাজাকার ও যুদ্ধাপরাধীর সন্তানদের নিয়োগ দানের লক্ষ্যে নিয়োগ কার্যক্রম দ্রুত সম্পন্ন করার চেষ্টায় লিপ্ত আছেন। তিনি আরও বলেন, বিজ্ঞপ্তিতে শিক্ষাগত যোগ্যতা, অভিজ্ঞতার উল্লেখ নেই, অফিস সহকারী কাম হিসাব সহকারীর স্থলে শুধুমাত্র অফিস সহকারী লেখা হয়ছে। এতে অফিস সহকারী কাম হিসাব সহকারী পদে এইসএসসি (ব্যবসায় শিক্ষা) সনদধারীদের আবেদনের সুযোগ থাকলেও ভুলের কারনে ব্যবসায় শিক্ষা সনদধারীরা আবেদন করেননি। এই নিয়োগ কার্যক্রম বন্ধ না হলে ঘুষ বাণিজ্য (অধ্যক্ষ পদে ১৫ লক্ষ ও অন্য পদগুলোতে ৫০ লক্ষ টাকা) ও বিজ্ঞপ্তিতে ভুলের কারণে অযোগ্য ও অপরাধীদের সন্তানরা নিয়োগ পেয়ে যাবেন। এব্যাপারে এলাকাবাসী মাননীয় জেলা প্রশাসক মহোদয়ের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করা হয়েছে।
##

আশাশুনিতে মৎস্য ঘেরে আক্রমন করে মারপিট ও লুটপাট ॥ আহত-৭
গোপাল কুমার মন্ডল, আশাশুনি ::
আশাশুনি উপজেলার দক্ষিণ বড়দলের পুটিমারী খাল নামক মৎস্য ঘেরে আক্রমন চালিয়ে মারপিট, ভাংচুর ও লাটপাট করা হয়েছে। প্রতিপক্ষের আক্রমনে ৭ জন আহত হয়েছে। গুরুতর আহত ৪ জনকে আশাশুনি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এব্যাপারে ৯ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা আরও ২/৩ জনের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। থানায় দায়েরকৃত অভিযোগ ও এলাকাবাসী জানান, দক্ষিণ বড়দল গ্রামের মৃত বসন্ত কুমার ঢালীর পুত্র বিভুতি ভুষন ঢালী পুটিমারী খাল নামক পৈত্রিক ও ডিডিকৃত ১৬ বিঘা জমিতে মৎস্য চাষ করে আসছেন। বাইনতলা গ্রামের মৃত মনিন্দ্র নাথ মন্ডলের পুত্র দেবব্রতের নেতৃত্বে প্রতিপক্ষ ঘেরটি জবর দখলের জন্য ৬ মাস পূর্ব হতে ২ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবী করে আসছিল। বিষয়টি এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিদের অবহিত করা হলে তারা আরও ক্ষিপ্ত হয়ে ষড়যন্ত্র শুরু করে। ১৩ এপ্রিল রাত একটার দিকে প্রতিপক্ষ বড়দল গ্রামের দেবব্রত মন্ডল, মুকুন্দ মন্ডল, সুবোল সরদার, শিবপদ মন্ডল, বাইততলার ভুপল মিস্ত্রী, দক্ষিণ বড়দলের ইদয় মন্ডল, উত্তম মন্ডল, দেবব্রত মন্ডলসহ তাদের লোকজন ঘেরে আক্রমন করে ঘেরে থাকা ব্যক্তিদের নির্দয়ভাবে মারপিট এবং ভংচুর ও লুটপাট করে। এতে অনুমান অর্ধ লক্ষ টাকা ক্ষয়ক্ষতি হয়। পাশের লোকজন এগিয়ে গেলে আক্রনকারীরা ২ লক্ষ টাকা গুছিয়ে রাখতে বলে, না হলে খুন-জখম করার হুমকী দিয়ে কেটে পড়ে। তাদের আক্রমনে কবিতা ঢালী, দুলাল ঢালী, দিবাকর ঢালী, ভীম সরকার, মিলন, হরষিত ও তরুন ঢালী আহত হন। গুরুতর আহত প্রথম ৪ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আক্রমনে নেতৃত্বদানকারী দেবব্রত ঘটনা সম্পর্কে কিছু জানেন না বলে দাবী করেছেন।
##