কালিগঞ্জ পোষ্ট অফিস ভবনের বেহাল দশা


116 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
কালিগঞ্জ পোষ্ট অফিস ভবনের বেহাল দশা
এপ্রিল ২৫, ২০১৮ কালিগঞ্জ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

সুকুমার দাশ বাচ্চু,কালিগঞ্জ ::
কালিগঞ্জ উপজেলা সদরের উপজেলা পোষ্ট অফিসটির ভবনের ছাদে ফাঁটল দেখা দিয়েছে। গ্রীল ও প্রচীর ভেঙ্গে নানা সমস্যায় জর্জরীত ও অরক্ষিত। পোষ্ট অফিসের প্রচীর ভেঙ্গে পুকুরে পড়ে যাওয়ায় ইট ও গ্রীল চুরি হয়ে গেছে। এছাড়া প্রচীর ভেঙ্গে পড়ার কারনে দিন ও রাতে অফিস চত্ত্বরে গরু, ছাগল ও বহিরাগত মানুষদের অবাদ চলাফেরায় পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে। পোষ্ট অফিসের বিল্ডিংয়ের ছাদে দেখা দিয়েছে ফাঁটল। উপজেলা পোষ্ট অফিসে সঞ্চয় পত্রের গ্রহক সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। একই ক্যাম্পাসের মধ্যে রয়েছে চার উপজেলা নিয়ে গঠিত সার্কেল পোষ্ট অফিস। সেখানে গুরুত্বপূর্ন কার্যক্রম চলে টিনের জরাজির্ণ ঘরে। জনগুরুত্বপূর্ন এই অফিসে প্রতিদিন শত শত মানুষ কাজ কর্ম নিয়ে আসলেও পোষ্ট অফিসের জরার্জিন অবস্থা কতৃপক্ষের নজরে পড়েনা। দেশের শহর থেকে প্রত্যান্ত অঞ্চলের মানুষের হাতে হাতে এখন মোবাইল ফোনের ব্যবহার রয়েছে। ইন্টারনেট সুবিধা দ্রুত ছড়িয়ে পড়ায় বিশ্ব এখন হাতের মুঠোয় এসে দাড়িয়েছে। দুরে থাকা প্রিয়জনদের সাথে যোগাযোগ করতে এখন আর আগের মতো পোষ্টকার্ড বা ইনভেলাপ চিঠি লিখে ডাকে পাঠাতে হয়না। তাই কোথাও কোথাও ডাক বিভাগের ডাকবাক্স গুলো অকেজো হয়ে পড়ে আছে কিম্বা সারা বছর চিঠিশুন্য হয়ে রয়েছে। বিগত দিনে একটা সময় ছিল দুর-দুরান্তের আত্মীয়-স্বজন বন্ধু বান্ধবদের সাথে ভাব আদান একমাত্র ব্যবস্থা ছিল বাংলাদেশ ডাক বিভাগ। সে সময় রানার পিঠে বোঝা ঝুলিয়ে ছুটতেন এক প্রান্ত থেকে অপর প্রান্ত পর্যন্ত। এ ডাক পিয়নদের এখন আমরা বলি পোষ্টম্যান। ডাক পিয়নের আওয়াজ শুনলেই মন চমকে উঠে। কি জানি এই চিঠিতে কি গোপনীয় সংবাদ লুকিয়ে আছে। সেই সময় ডাক পিয়ন বা রানার কতটা পথ পাড়ি দিয়ে প্রাপকের কাছে চিঠি পৌছে দিতেন। সেই যুগে দেশের যোগাযোগ ব্যবস্থা আজকের মত এতোটা উন্নত ছিলনা। রাস্তা ঘাট ও পরিবহন ব্যবস্থা গড়ে উঠেনি সেই সময়, নৌ-পথ ছিল চলাচলের একমাত্র উপায়। সেই অবস্থায় দূর্গম পথ পাড়ি দিয়ে রানার বা ডাক পিয়ন চিঠির বোঝা নিয়ে ছুটতেন আমাদের কাছে বার্তা পৌছে দিতে। সময় পাল্টে গেছে, বর্তমান সময়ে অবস্থার অনেক উন্নতি হয়েছে, তথ্য প্রযুক্তির বিকাশ ঘটেছে। এখন মানুষের চিঠি লেখার প্রবনতা একবারেই নেই বললেই চলে। সেই সময় চিঠির মধ্যে দিয়ে যে মনের অব্যক্ত ভাষা ফুটিয়ে তোলা যায় তা কিন্ত অন্য কোন মাধ্যমেই সেটা সম্ভব না। এখনো হয়তো কেউ কেউ একখানা চিঠি লিখে পোষ্টবাক্সে ফেলে আসেন। কিন্ত তার সংখ্যাও দিন দিন কমে আসছে। আগামিতে এমনও হতে পারে চিঠি লিখে পোষ্ট করার বিষয়টি কাহিনী গল্প হিসাবে পরবর্তী প্রজম্মের কাছে উঠে আসবে। এখন মোবাইল ফোনের দুই তিন লাইনের একটি মেসেজ চিঠির সেই জায়গা দখল করে নিয়েছে। বাংলাদেশ ডাক বিভাগ আধুনিকায়নের জন্য প্রকল্প হাতে নেয়া হলে জরার্জিন ভবন সংস্কার হয়নি। উপজেলা পোষ্ট অফিসে উদ্যোক্তা কামরুন্নাহার জানান, প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা সজিব ওয়াজেদ জয় এর উদ্দ্যোগে একটি প্রকল্পের মাধ্যমে আমি ও আমিরুল ইসলাম দেড় বছর যাবৎ কাজ করছি। সে আরো জানায় পোষ্ট অফিসের একটি কক্ষে ৩ ও ৬ মাস মেয়াদী কম্পিউটার প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে। এছাড়া চাকুরীর বিভিন্ন তথ্য প্রদানসহ অনলাইনের মাধ্যমে চাকুরী, ভর্তিসহ বিভিন্ন ধরণের ফরম পুরণের কাজ চলছে এই পোষ্ট অফিসে। পাশাপাশি স্কানিং, ছবি তোলা, কম্পিউটার কম্পোজের কাজও করা হয়। উপজেলা পোষ্ট অফিসের পোষ্ট মাস্টার সত্য প্রসাদ বাইন এ প্রতিনিধিকে জানান, কম্পিউটার প্রশিক্ষণ, প্রিণ্টিং, কম্পোজ, ছবি প্রিন্টিং, স্ক্যানিং, ই-লার্নিং, ই-মেইল, ইন্টারনেট ব্রাইজিং, ইন্টারনেটে পরীক্ষার ফলাফল, ভর্ত্তি, চাকুরীরর আবেদন, কৃষি বিষয়ক তথ্য ও দেশ বিদেশে ভিডিও কনফারেন্স, বর্তমানে এই পোষ্ট অফিসে সঞ্চয় ব্যাংকিং কার্যক্রমের চাপ খুব বেশী। গ্রহকরা সঞ্চয়পত্র খুলতে অতি উৎসাহ হয়ে বেশী ভীড় করছে। এছাড়া পোষ্ট অফিসের অন্যান্য কার্যক্রম স্বাভাবিক ভাবেই চলছে। এই পোষ্ট অফিস থেকে ওয়েষ্টান ইউনিয়নের মাধ্যমে মাসে কোট টাকার বৈদেশীক মুদ্রা লেনদেন চলতো। সফটাওয়ার নষ্ট থাকায় ওয়েষ্টান ইউনিয়নের মাধ্যমে বৈদেশীক মুদ্রা লেনদেন কাযক্রম গত এক বছর বন্ধ রয়েছে। ফলে সরকার রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। পোষ্ট অফিসের ভবন জরাজির্ন ও ছাদে ফাঁটল দেখা দেওয়ায় আমরা সর্বক্ষণ জীবনের ঝুকি নিয়ে কাজ করছি। প্রচীর ভেঙ্গে যাওয়ায় গ্রীল, গেট নষ্ট হওয়ায় অফিস চত্ত্বর অরক্ষিত ও নিরাপত্তাহীতায় মধ্যে আমাদের কাজ কর্ম চালাতে হচ্ছে। বিষয়টি উর্দ্ধোতন কতৃপক্ষকে জানিয়েছি, ভবন, প্রচীর ও গেট সংস্কারের আশ্বাস দিয়েছে কবে নাগাদ এই সংস্কারের কাজ শুরু হবে সেটা বলা সম্বব না। তিনি আরো বলেন সময়ের সাথে তাল মিলিয়ে ডিজিটাল ও আধুনিক তথ্য প্রযুক্তির বিকাশের সাথে সমঞ্জস্য রেখে আমরা কাজ করছি।