কালিগঞ্জ সংবাদ ॥ বিশ্ব কবি রবিন্দ্রনাথ ঠাকুরের জম্ম জয়ন্তি পালন


287 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
কালিগঞ্জ সংবাদ ॥ বিশ্ব কবি রবিন্দ্রনাথ ঠাকুরের জম্ম জয়ন্তি পালন
মে ৯, ২০১৮ কালিগঞ্জ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

সুকুমার দাশ বাচ্চু কালিগঞ্জ ::
মরিতে চাহিনা আমি এই সুন্দর ভূবনে মানবের মাঝে বাচি বার চাই এই শ্লোগানকে সামনে রেখে কালিগঞ্জে বিশ্ব কবি রবিন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৫৭তম জম্ম জয়ন্তি উপলক্ষে আলোচনা সভা, কবিতা আবৃতি, নৃত্য সংঙ্গিত সন্ধ্যা অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপজেলা শিল্পকলা একাডেমির সার্বিক ব্যবস্থাপনায় মঙ্গলবার বিকেলে অফিসার্সক্লাব মিলনায়তনে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। শিল্পকলা একাডেমির সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা গোলাম মাঈনউদ্দিন হাসানের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক সুকুমার দাশ বাচ্ছু‘র সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন কালিগঞ্জ সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মেহেদী ইমরান সিদ্দিকী বিশিষ্ঠ সাহিত্যিক ও প্রবান্ধিক অধ্যাপক গাজী আজিজুর রহমান, কালিগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি শেখ সাইফুল বারী, সাংবাদিক সমিতির কালিগঞ্জ উপজেলা শাখার সভাপতি শেখ আনোয়ার হোসেন, রিপোর্টার্স ক্লাবের সভাপতি নিয়াজ কওছার তুহিন, সোহরাওয়ার্দী পার্ক কমিটির সদস্য সচিব এ্যাডভোকেট জাফরুল্লাহ ইব্রাহিম, কবি মনজুর লুৎফর রহমান, জাতীয় শ্রেষ্ঠ শিক্ষক প্রাণ কৃষ্ণ সরকার। জম্ম জয়ন্তি অনুষ্ঠানে কবিতা আবৃতি করেন কাজী আলাউদ্দিন কলেজের ইংরেজি বিভাগের শিক্ষক রাম প্রসাদ ঘোষ, কবি মোশারাফ হোসেন, বাবুরালী গাজী, আলী সোহরাফ, আব্দুলাহ। সংঙ্গিত পরিবশেন করেন আব্দুর রাজ্জাক, শান্তি চক্রবর্তী, সঞ্জয় সরকার, গোলাম মোস্তফা, কনিকা সরকার, তমালিকা র্স্বণকার, অন্তিকা প্রসাদ ঘোষ ও মনিষ ঘোষ প্রমুখ।
##

কালিগঞ্জে একই পরিবারের ৫ জনকে অজ্ঞান করে সর্বস্ব লুট

সুকুমার দাশ বাচ্চু কালিগঞ্জ ::
কালিগঞ্জে খাদ্য দ্রব্যে চেতনানাশক ঔষুধ মিশিয়ে একই পরিবারের ৫ জনকে অজ্ঞান করে স্বর্ণালংকার, জিনিসপত্র ও নগদ টাকাসহ প্রায় ১৫ লক্ষাধিক টাকার মালামাল নিয়ে গেছে দূবৃত্তরা। ঘটনাটি ঘটেছে সোমবার রাত সাড়ে ১১ টার দিকে উপজেলার কুশুলিয়া ইউনিয়নের গোবিন্দপুর গ্রামে। সকালে জানতে পেরে প্রতিবেশিরা অচেতন অবস্থায় তাদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। হাসপাতালের বেডে চিকিৎসাধিন অর্ধজ্ঞানহীন অবস্থায় বিল্লাল হোসেন জানান, ঠেকরা ইটভাটা সংলগ্ম রাস্তার উপর তাদের মুদি ও চাউলের দুটি দোকান রয়েছে। প্রতি বারের ন্যায় এবারও ঐ দোকানে দুই দিন হালখাতা চলছিল, গতকাল সোমবার ছিল শেষ দিন। দুই দিনের হালখাতার ১০ লাখ টাকা বাড়িতেই রাখা ছিল। প্রতি দিনের ন্যায় সোমবার রাত ১১টার দিকে খাওয়া দাওয়া শেষে আমরা ঘুমাতে যাই তারপর আর কিছু বলতে পারিনা। যখন জ্ঞান ফিরলো দেখলাম আমরা সবাই হাসপাতালে। চিকিৎসাধিন রোজিনা পারভিন জানান, বাড়িতে গোস রান্না করা হয়েছিল। রাতে ঐ গোস গরম করার জন্য রান্না ঘরে চুলার উপর রেখে এসেছিলাম ঐ সময় গোপনে খাবারে কিছু মেশানো হয়েছে। আর সেই খাবার খাওয়ার পর আমাদের এই অবস্থা। অজ্ঞান পাটির কবলে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন গোবিন্দপুর গ্রামের মৃত মঙ্গল গাজি ছেলে মোমরেজ গাজি (৫০), তার স্ত্রী শাকিলা বেগম (৪৫), ছেলে বেল্লাল গাজি (৩০) ছেলের বৌ অহিদা পারভীন (২৫) ও নারায়নপুর গ্রামের ইদ্রিস বিশ্বাসের স্ত্রী রোজিনা পারভীন (৩০)। দুপুর ১২টা নাগাদ তাদের দুই একজনের জ্ঞান ফিরলেও স্বাভাবিক অবস্থা ফিরে আসেনি। স্বজনরা আরো জানান, প্রাথমিক পর্যায়ে মনে করা হচ্ছে ছদ্দবেশে কেউ রান্না ঘরে ঢুকে গোসের সাথে কৌশলে চেতনানাশক ঔষুধ মিশিয়ে বাড়ির সবাইকে অজ্ঞান করে স্বর্ণালংকার, নগদ টাকাসহ মূল্যবান জিনিষপত্র নিয়ে গেছে। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ভূক্তভোগি পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় কোন অভিযোগ দেওয়া হয়নি। এদিকে একই পরিবারের পাঁচজনকে অজ্ঞান করে বাড়ির জিনিষপত্র নিয়ে যাওয়ার ঘটনায় এলাকায় সাধারণ মানুষের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে।
##