মুক্তি পেলেন মালয়েশিয়ার আনোয়ার ইব্রাহিম


69 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
মুক্তি পেলেন মালয়েশিয়ার আনোয়ার ইব্রাহিম
মে ১৬, ২০১৮ প্রবাস ভাবনা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

শেখ সেকেন্দার আলী,মালয়েশিয়া ::
সমকামিতা ও দুর্নীতির অভিযোগে কারাবন্দি মালয়েশিয়ার বহুল আলোচিত নেতা আনোয়ার ইব্রাহিম জেল থেকে মুক্তি পেয়েছেন। এর ফলে তার রাজনীতিতে ফেরার পথ আরও সুগম হল।

আনোয়ার ইব্রাহিমের মুক্তির জন্য মালয়েশিয়ার রাজার কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করেছিলেন দেশটির নবনির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ। বুধবার সকালে আনোয়ার ইব্রাহিমের ক্ষমা মঞ্জুর করে তাকে মুক্তি দেওয়া হয়।

জেল থেকে মুক্তির পর কুয়ালালামপুরের একটি হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য যান আনোয়ার ইব্রাহিম। এরপর ইস্তানা নেগারার রাজপ্রাসাদের যান তিনি। সেখানে প্রধানমন্ত্রী মাহাথিরের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। এসময় রাজপ্রাসাদের সামনে আনোয়ারের সমর্থকরা উল্লাস করেন।

প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেওয়ার একদিন পর গত গত ১১ মে এক সংবাদ সম্মেলনে মাহাথির বলেছিলেন, আনোয়ারকে সম্পূর্ণ মুক্ত করে দেবেন বলে ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন রাজা। তার মানে খুব শিগগিরই তাকে মুক্তি দেওয়া হবে। মুক্তি পাওয়ার পর তিনি পুরোদমে রাজনৈতিক কাজে অংশগ্রহণ করতে পারবেন।

মাহাথির এবং আনোয়ার দু’জনেই বারিসান ন্যাশনাল পার্টিতে একসঙ্গে রাজনীতি করেছেন। ১৯৮১ সালে মাহাথির প্রথম প্রধানমন্ত্রী হন এবং আনোয়ার ছিলেন তার উপপ্রধানমন্ত্রী। ফলে তাদের সম্পর্কের গল্পটা নাটকীয়তায় ভরা।

মত ও পথের পার্থক্য এবং জোটের নেতৃত্ব নিয়ে মাহাথির ও আনোয়ার দ্বন্দ্বে জড়িয়ে পড়েন ১৯৯৮ সালে। ওই বছরই আনোয়ারকে উপপ্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে বহিষ্কার করেন মাহাথির। পরের বছর দুর্নীতির মামলায় এবং সমকামিতার অভিযোগে জেলে ঢোকানো হয় আনোয়ারকে। এ ঘটনার প্রতিবাদে সে সময় মাহাথিরের বিরুদ্ধে মালয়েশিয়ায় ব্যাপক বিক্ষোভ হয়েছিল। আনোয়ারের বিরুদ্ধে সমকামিতার অভিযোগকে তার বিরুদ্ধে রাজনৈতিক হাতিয়ার বলে মনে করে সাধারণ মানুষ। পাঁচ বছর পর জেল থেকে ছাড়া পান তিনি।

২০০৮ এবং ২০১৩ সালের মালয়েশিয়ার সাধারণ নির্বাচনে শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বিতা গড়ে তোলেন আনোয়ার। এতে তাকে হুমকি মনে করেন সে সময়কার এবং সদ্য বিদায়ী প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাক। ২০১৩ সালে স্থানীয় নির্বাচনে জয়ী হতে যাচ্ছেন আনোয়ার- এমনটা মনে করে ওই বছরই তাকে আবারও পুরনো অভিযোগে জেলে পাঠানো হয়।

এর পরের ঘটনা নাজিব রাজাকের জন্য সুখকর নয়। গত দুই বছর আগে নাজিবের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ তুলে বারিসান ছেড়ে বিরোধী জোটে যোগ দেন ২০০৩ সালে স্বেচ্ছায় ক্ষমতা ছেড়ে দেওয়া মাহাথির। গত গত ৯ মে ঐতিহাসিক নির্বাচনে জয় পায় বিরোধী জোট হারাপান পাকাতান। এই জোটের অন্যতম নেতা আনোয়ার। চলতি বছরের জানুয়ারিতে এই বিরোধী জোট থেকেই প্রধানমন্ত্রী পদের জন্য নির্বাচনের ঘোষণা দেন মাহাথির। নির্বাচনে জয় লাভ করলে নিজের সাবেক উপপ্রধানমন্ত্রী আনোয়ারকে জেল থেকে মুক্ত করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন তিনি। আগামী দুই বছরের মধ্যে আনোয়ারের হাতে প্রধানমন্ত্রিত্বের দায়িত্ব তুলে দেবেন বলে জানিয়েছেন মাহাথির। তিনি বলেছেন, তিনি আগামী দু’বছরের মধ্যে পদ ছেড়ে দেবেন এবং তখন আনোয়ার ইব্রাহিমই পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হবেন। মাহাথির স্বীকার করেছেন, দুই দশক আগে আনোয়ারকে জেলে ঢোকানোর বিষয়টি এভাবেই প্রায়শ্চিত্ত করতে চান তিনি।

মাহাথির আগামী দু’বছরের মধ্যেই নিজের ক্ষমতা আনোয়ার ইব্রাহিমকে হস্তান্তর করবেন বললেও এখনই তাকে মন্ত্রিসভায় নেওয়া হবে কি-না, তা তিনি স্পষ্ট করেননি।