কলারোয়া সংবাদ ॥ ইউপি চেয়ারম্যান-মেম্বরদের প্রশিক্ষণ কর্মশালা


95 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
কলারোয়া সংবাদ ॥ ইউপি চেয়ারম্যান-মেম্বরদের প্রশিক্ষণ কর্মশালা
আগস্ট ৮, ২০১৮ কলারোয়া ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

কে এম আনিছুর রহমান,কলারোয়া ::
সাতক্ষীরার কলারোয়া উপজেলার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও সদস্যগনের জন্য ইউনিয়ন পরিষদ প্রশাসন অবহিতকরণ কোর্সের তিন দিনের প্রশিক্ষণ কর্মশালার দ্বিতীয় দিন শেষ হয়েছে। জাতীয় স্থানীয় সরকার ইনস্টিটিউট (এনআইএলজি) ঢাকার আয়োজনে ও কলারোয়া উপজেলা প্রশাসনা এর বাস্তবায়নে এ কর্মশালা চলছে।
এ কার্যক্রমের দ্বিতীয় দিনে ক্লাস নেন (উপসচিব) স্থানীয় সরকার, সাতক্ষীরার উপ-পরিচালক শাহ আবদুল সাদী ও কলারোয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মনিরা পারভীন।এ সময় উপস্থিত ছিলেন কোর্সের কো-অর্ডিনেটর উপজেলা পরিসংখ্যান কর্মকর্তা তাহের মাহমুদ সোহাগ, উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা নওশের আলী, ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আব্দুল হামিদ সরদার, ইউপি চেয়ারম্যান রবিউল ইসলান, ইউপি চেয়ারম্যান মনিরুল ইসলাম মনি, ইউপি চেয়ারম্যান আসলামুল আলম আসলাম, ইউপি চেয়ারম্যান মাহাবুবুর রহমান মফে, ইউপি চেয়ারম্যান এসএম মনিরুল ইসলাম প্রমুখ।
এদিকে, বৃহস্পতিবার কোর্সের সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ ইফতেখার হোসেন উপস্থিত থাকবেন বলে জানান ইউএনও মনিরা পারভীন।
##

কলারোয়ায় ছাত্রলীগের বিক্ষোভ মিছিল
কে এম আনিছুর রহমান ::
সাতক্ষীরার কলারোয়া সরকারী কলেজ ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি’র উপর হামলার প্রতিবাদে কলেজ ছাত্রলীগের আয়োজনে এক বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ হয়েছে। বুধবার বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে কলারোয়া সরকারী কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি মেহেদী হাসান ফাইমের নেতৃত্বে মিছিলটি পৌর সদরের প্রদক্ষিণ শেষে কলেজ চত্ত্বরে বক্তব্য দেন- কলেজ ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি সবুর হোসেন,যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শেখ শাহারিয়া ইসলাম, কলারোয়া সরকারী কলেজ বঙ্গবন্ধু ছাত্র হলের সভাপতি মেহেদী, সাংগঠনিক সম্পাদক ইমরান, ছাত্রনেতা রাজু, নাঈম, জুলফিকার, শান্ত, মনি, উজ্জল, হৃদয়, মুন্না, রাজু, মাছুম, আবির, জাহিদ, ইয়াছিন, আশিক, রনি মিন্টু, কাজল প্রমুখ। সমাবেশে নেতারা বলেন-আগামী ২৪ঘন্টার মধ্যে সন্ত্রাসী রাসেল, তরিকুল, শরিফুল ও ইন্তাজকে গ্রেফতার করতে হবে। অন্যথায় বৃহত্তর কর্মসূচি গ্রহন করে কলেজ ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে মিছিল ও মিটিং ও সমাবেশ চলতে থাকবে।
##

কলারোয়ায় ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি সন্ত্রাসী হামলায় গুরুতর আহত
কে এম আনিছুর রহমান ::
সাতক্ষীরার কলারোয়ায় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে সন্ত্রাসী সরকারী কলেজ ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি মাসুদ পারভেজ হৃদয় (২০) রক্তাক্ত জখম হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। সে উপজেলার ধানঘোড়া গ্রামের জাহান আলীর ছেলে ও কলারোয়া সরকারী কলেজের ২য় বর্ষের ছাত্র এবং ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি। মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে উপজেলার কাজীরহাট বাজার সংলগ্ন আলমগীরের সারের দোকানের সামনে ঘটনাটি ঘটেছে।
আহত মাসুদ পারভেজ হৃদয় জানান, তুচ্ছ ঘটনায় জের ধরে প্রথমে মঙ্গলবার বিকালে কাজীরহাট বাজারের ব্র্যাক অফিসের সামনে একই এলাকার ইমান পোল্ট্রির ছেলে তরিকুল ইসলাম (১৯), ইমতিয়াজ হোসেন (২০), নূর হোসেন (১৮) ও আলী হোসেনের ছেলে রাসেল (২০) এর সাথে কথা কাটাকাটি শুরু হয়। তর্ক-বিতর্কের এক পর্যায়ে তারা ছাত্রলীগনেতা হৃদয়কে দেখে নেয়ার হুমকী দিয়ে আশে পাশে থাকা লোকজন সমাগম করার জন্য ডাকতে থাকেন।
খবর পেয়ে স্থানীয় সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সম মোরশেদ আলী রাত সাড়ে ৯টার দিকে উভয় পক্ষকে ডেকে বিষয়টি মিমাংসা করার জন্য আহত হৃদয় ও তার মাকে আলমগীরের সারের দোকানে আসতে বলেন। সেই মোতাবেক তারা ওই স্থানে যাওয়া মাত্রই নামধারী সন্ত্রাসী তরিকুলের হাতে থাকা পেপসির বোতল এবং ইমতিয়াজ ও রাসেলের হাতে থাকা লোহার রড দিয়ে সরকারী কলেজ ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি মাসুদ পারভেজ হৃদয়ের উপর পরিকল্পিত ভাবে হামলা চালিয়ে এলেপাতারী মারপিট ও রক্তাক্ত জখম করে কপাল ফাটিয়ে দেয়। ওই রাতেই রক্তাক্ত অবস্থায় আহত হৃদয়কে স্থানীয়রা উদ্ধার করে কলারোয়া সরকারী হাসপাতালে নিয়ে আসেন এবং কপালে ৪টার সেলাই দিয়ে হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। খবর পেয়ে উপজেলা সৈনিকলীগের সভাপতি রুবেল মল্লিক ও সাধারণ সম্পাদক ফিরোজ হোসেন স¤্রাটসহ নেতৃবৃন্দ হাসপাতালে ছুটে যান এবং আহত কলেজ ছাত্রলীগনেতা মাসুদ পারভেজ হৃদয়ের চিকিৎসার খোঁজ খবর নেন এবং ঘটনার সাথে জড়িত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে তারা জানান।
##

কলারোয়া পৌর সভার রাস্তাগুলো খানাখন্দকে পরিণত ॥ ভোগান্তি চরমে
কে এম আনিছুর রহমান ::
সাতক্ষীরার কলারোয়া পৌর সভার বিভিন্ন রাস্তাঘাট খানাখন্দকে পরিণত হয়েছে। রাস্তা গুলোর অবস্থা এতটাই নাজুক যে,সাধারণ মানুষ ও পথচারীরা চলাচলে ব্যাপক হিমশিম ও ভোগান্তির শিকার হচ্ছে। সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, কলারোয়া থানার সামনে যশোর-সাতক্ষীরা মহাসড়কে, হাসপাতাল রোডের নতুন তৈরিকৃত রাস্তা, কলারোয়া বলফিল্ট পাশের রাস্তা, বেত্রবতীর নদীর ওপারের রাস্তা ভেঙ্গে খানা খন্দকে পরিণত হয়েছে। তবে ওই রাস্তাগুলো গত এক বছর আগে সংস্কার করা হয়েছিল। কিন্তু বছর না যেতেই যেতেই ওই রাস্তাগুলো ছোট-বড় গর্তের সৃষ্টি হওয়ায় জনসাধারণ রীতিমত বিরূপ মন্তব্যও করছেন। পৌরসভার অন্যান্য সড়কগুলোর অবস্থাও বেহালদশা জরাজীর্ণ হয়ে পড়েছে। আর এ অবস্থার কারণে কলারোয়া বাজারে নছিমন স্ট্যান্ড, হাসাপাতাল রোড ও পাকা পুলের মাথার রাস্তা গুলো খুব খারাপ অবস্থা। এ সব প্রতিনিয়ত ছোট খাটো দূর্ঘটনাও ঘটছে। সামান্য বষ্টিতেই রাস্তা গুলো মরণ ফাঁদে পরিণত হয়। ফলে জনগণ চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছে।
##