আশাশুনির বুধহাটায় বিদ্যুৎ সংযোগের দাবীতে মানববন্ধন


394 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
আশাশুনির বুধহাটায় বিদ্যুৎ সংযোগের দাবীতে মানববন্ধন
সেপ্টেম্বর ১৪, ২০১৮ আশাশুনি ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

এস,কে হাসান ::
আশাশুনি উপজেলার বুধহাটা ইউনিয়নের শ্বেতপুর গ্রামে বিদ্যুৎ সংযোগের দাবী ও টাকা নিয়েও সংযোগ না পাওয়ার প্রতিকারের দাবীতে মনববন্ধন করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে শ্বেতপুর মধ্যপাড়া আহলে হাদীছ জামে মসজিদের সামনের সড়কে এ মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়।
শ্বেতপুর গ্রামের বিদ্যুৎ বঞ্চিত পরিবারের সদস্যদের অংশ গ্রহনে মানববন্ধন চলাকালে মসজিদ কমিটির ক্যাশিয়ার ইমদাদুল হক সানাসহ এলাকার বিদ্যুত বঞ্চিত ও টাকা দিয়ে প্রতারিত ব্যক্তিবর্গ সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য রাখেন। ২০১৭ সালে এলাকায় বিদ্যুৎ সংযোগ করিয়ে দেওয়ার জন্য খরচ যোগাতে ৯০ টি পরিবারের কাছ থেকে টাকা আদায় করা হয়েছিল। টাকা আদায়ের দায়িত্বে থাকা ছোবহান বিশ্বাসের পুত্র রেজাউল করিম জানান, তিনি এবং একই গ্রামের মৃত আকিম উদ্দিন সানার পুত্র মসজিদ কমিটির সভাপতি রেজাউল সানা, মৃত ইউছুফ সরদারের পুত্র আছাদুল ইসলাম একত্রে গ্রামের ৯০ পরিবারের নিকট থেকে ৩০০ টাকা থেকে ৪৫০ টাকা করে আদায় করেন। আদায়কৃত টাকা সাতক্ষীরা জেলা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি আশাশুনির তৎকালীন আঞ্চলিক পরিচালক মোতাহার হোসেন সজলের কাছে হস্তান্তর করেন। তিনি তৎকালীন পল্লী বিদ্যুতের ইঞ্জিনিয়ারের মাধ্যমে বিদ্যুৎ সংযোগ পেতে টাকা ব্যয় ও কার্যক্রম চালান। তখন বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মকর্তারা দু’বার এলাকা পরিদর্শন করেন। তারা মোট ৪৫ হাজার টাকা আদায় করে হস্তান্তর করেছেন বলে তিনি (রেজাউল) জানান। মানবন্ধনকারীদের দাবী সরকার বিনামূল্যে বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়ায় অঙ্গীকারাবন্ধ ঘোষণা দিলেও এলাকা থেকে অবৈধভাবে টাকা উত্তোলন কেন করা হলো এবং টাকা নেওয়ার পরও দীর্ঘ দু’বছরে কেন এলাকায় সংযোগ দেওয়া হয়নি, তা তদন্তপূর্বক আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী জানান হয়। সাথে সাথে অবিলম্বে বিদ্যুৎ বঞ্চিত অসহায় পরিবারগুলোর মধ্যে বিদ্যুৎ সংযোগের ব্যবস্থা করতে জোর দাবী জানান হয়। এব্যাপারে পল্লী বিদ্যুতের আশাশুনি আঞ্চলিক পরিচালক মোতাহার হোসেন সজলের সাথে মোবাইলে কথা বললে তিনি জানান, শ্বেতপুরে বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়ার জন্য ইঞ্জিনিয়ার মাপজোক করেছেন। বিভিন্ন কাজের খরচ বাবদ টাকা ব্যয় হয়েছে। ইতিমধ্যে কাজের টেন্ডার হয়ে গেছে। যার মাইল বেচ ৭.৭। ওয়ারওভার ৩৫৫/৩, লড নং ১৭৭৭০। এবং ওয়ারওভার ৩৫৬/৪। লড নং ১৭৭৪৮। কাজের ঠিকাদার নিযুক্ত হয়েছেন এস এম সোলায়মান ও আবুল কালাম। মালামাল সংকটের কারণে ঠিকাদাররা কাজ শুরু করতে পারেননি। মালামাল আসলেই কাজ শুরু হবে।

##