মুশফিক বিশ্রামে খেলবেন মুমিনুল


182 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
মুশফিক বিশ্রামে খেলবেন মুমিনুল
সেপ্টেম্বর ১৯, ২০১৮ খেলা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন ডেস্ক ::

রুটি সেঁকতে গিয়ে শেষ পর্যন্ত না আবার হাতটাই পুড়ে যায়- শুধু কি রাগী সূর্যের শাসানি, সঙ্গে আগুনের হলকার মতো তেজি হাওয়া। কী দরকার সেধে সেধে হিটস্ট্রোকের ঝুঁকি নেওয়া। তার চেয়ে বরং হোটেলের জিমে গিয়ে মাসল শক্ত করো, পুলে গিয়ে সাঁতার কাটো- খেলার দিন মাঠে একটু আগে গেলেই চলবে- আপাতত এ-ই হচ্ছে দুবাইয়ে টাইগার শিবিরে কোচ স্টিভ রোডসের মূল মন্ত্র। এদিন আর তাই চল্লিশ কিলোমিটার গিয়ে অনুশীলন নয়, দুপুরের খানিকটা সময় বের করে নিয়ে মাশরাফি, রিয়াদদের কেউ কেউ হোটেলের আশপাশে শপিংমলে ঢুঁ মেরেছিলেন। আসলে শ্রীলংকার বিপক্ষে ওই ম্যাচের পর বেশ ক’টা দিন হাতে আছে- এ সময় বৈরী আবহাওয়ায় ক্রিকেট অনুশীলন না করে বরং টেবিলওয়ার্কেই বেশি মনোযোগী টিম ম্যানেজমেন্ট (কোচ, অধিনায়ক, নির্বাচক)। এদিনও দুপুর ২টায় হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে টিম মিটিংয়ে বসেছিলেন সবাই। সেখানেই একটি সিদ্ধান্ত পূর্ণ সমর্থনে পাস হয়। কাল আফগানিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচটিতে বিশ্রাম দেওয়া হবে মুশফিককে। তার বদলে একাদশে খেলানো হবে মুমিনুল হককে। কিন্তু তামিমের জায়গায় কে?

প্রশ্নটি নিয়ে এদিন হোটেলের লবিতে ঢাকা থেকে আসা সাংবাদিকদের একটি দল উত্তর খুঁজতে ব্যস্ত ছিল। দুপুরের ওই মিটিংয়ের পর জানা গেছে, লিটন দাসের সঙ্গে আফগানদের বিপক্ষে ওপেন করতে দেখা যেতে পারে নাজমুল হোসেন শান্তকে। মিঠুন নাকি শান্ত- কে ওপেন করলে ভালো হয়, সেই যুক্তিতর্কে ভোট পড়েছে বেশি শান্তর পক্ষেই। বিপিএলে তিনি খুলনা টাইটান্সের হয়ে ওপেন করেছিলেন। ক্লাব ক্রিকেটে আবাহনীর হয়েও তার ওপেনিং করার অভিজ্ঞতা আছে। তা ছাড়া বাঁহাতি বলেও একটা বাড়তি সুবিধা আছে তার, লিটনের সঙ্গে ডানহাতি-বাঁহাতি কম্বিনেশনটা খেটে যেতে পারে। তবে এ ব্যাপারে দলের সঙ্গে থাকা নির্বাচকপ্রধান মিনহাজুল আবেদীন নান্নুর অফিসিয়াল কমেন্টস হলো, ‘দল এখনও ঠিক হয়নি, ম্যাচের আগের দিন রাতে সেটি ঠিক করা হবে।’ আফগানদের বিপক্ষে ম্যাচটি জিতলেই গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে সুপার ফোরে যেতে পারবে টাইগাররা। একটি বাড়তি বোনাস পয়েন্টও নাকি যোগ হবে। আফগানদের বিপক্ষে মুশফিককে বিশ্রাম দেওয়ার অর্থ এই নয় যে ম্যাচটি হালকাভাবে নিচ্ছে টিম ম্যানেজমেন্ট। বরং মাশরাফি তার ছেলেদের পরিস্কার জানিয়ে দিয়েছেন, জয়ের মোমেন্টাম থেকে সরে আসা চলবে না।

আসলে মুশফিকের পাঁজরের একটি হাড়ে চিড় ধরেছে। প্রচণ্ড ব্যথায় গত কয়েক দিনে পঁচিশটির মতো ব্যথানাশক ওষুধও খেয়েছেন। মুশফিক নিজেকে প্রস্তুত করছেন বরং সুপার ফোরে ভারত ও পাকিস্তানের ম্যাচের জন্য। ‘মুশফিকের চোট আছে এটা ঠিক, তবে সে নিজেকে তৈরি করেই খেলতে নামবে। সে জানে, কখন তাকে কী করতে হবে। এ ব্যাপারে সে বেশ সচেতন।’ কোচ স্টিভ রোডসও একদিনে বুঝে নিয়েছেন, দলের সিনিয়ররা দেশের হয়ে খেলার জন্য কতটা অনুপ্রাণিত। ‘আমাদের এই দলের প্রত্যেক ক্রিকেটারের মধ্যে আমি যে দেশপ্রেম লক্ষ্য করেছি, তা সত্যিই অনবদ্য। সেদিন এক হাতে তামিম যা করে দেখালেন, মুশফিক বুকে ব্যথা নিয়েও যেভাবে ইনিংস টেনে নিলেন, তা দেখে গোটা দল অনুপ্রাণিত হয়ে যায়।’ মুশফিককে এক ম্যাচ বিশ্রাম দিয়ে তাই মুমিনুলকে খেলানোর পক্ষেও কোচের রায় পড়েছে। মুমিনুলও তৈরি আছেন চার নম্বরে ব্যাটিংয়ের জন্য। আসলে বিশ্বকাপ সামনে রেখে দলের সিনিয়রদের চোট-আঘাত থেকে কিছুটা রেহাই দিতে একটা ‘ব্যাকআপ’ কম্বিনেশন তৈরি করতে চাইছে টিম ম্যানেজমেন্ট। আর তার শুরুটা হতে পারে আফগানিস্তানের বিপক্ষে পরের ম্যাচ থেকেই। অন্তত দুবাইয়ের ‘টাইগার বুলেটিনে’ এমনই ইঙ্গিত রয়েছে।