সাতক্ষীরায় শরিকদের কারনে ভালো নেই আ’লীগ -বিএনপি


350 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরায় শরিকদের কারনে ভালো নেই আ’লীগ -বিএনপি
নভেম্বর ২১, ২০১৮ আশাশুনি কলারোয়া কালিগঞ্জ তালা দেবহাটা ফটো গ্যালারি শ্যামনগর সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

॥ এম কামরুজ্জামান ॥

সাতক্ষীরা বাংলাদেশের সর্ব দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের সুন্দরবন ঘেঁষা সীমান্তবর্তী একটি জেলা। বিগত দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন থেকে এ জেলায় ৪টি আসন নির্ধারণ করেছেন নির্বাচন কমিশন। এর আগে এ জেলায় জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৫ টি আসন ছিল। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে সাতক্ষীরার এ চারটি আসনে সব রাজনৈতিক দলের সম্ভাব্য প্রার্থীরা বেশ আগে থেকেই নিজ নিজ দলের মনোনয়ন পাওয়ার আশায় কাজ শুরু করেছেন। বড় দুই রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশীরা জেলার চারটি আসনেই শরিক দলের চাপে ভাল নেই। শরিক দলের কারনে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির যোগ্য ও পোড়খাওয়া নেতারা মনোনয়ন থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। এনিয়ে বড় দুই দলের নেতা-কর্মীদের মধ্যে দেখা দিয়েছে ক্ষোভ-বিক্ষোভ।
সাতক্ষীরা-১ ( তালা-কলারোয়া ) আসনে আওয়ামী লীগের শরিকক ওয়ার্কর্স পার্টির কেন্দ্রীয় নেতা এড. মুস্তফা লুৎফুল্লাহ দশম জাতীয় সংসদে ১৪ দলের এমপি নির্বাচিত হন। তিনি এবারও মনোনয়ন পাওয়ার জন্য জোর প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। জাতীয় পার্টিও এই আসনে এবার ছাড় দিতে নারাজ। তাদের প্রার্থী জাপার কেন্দ্রীয় নেতা, সাবেক মন্ত্রী সৈয়দ দিদার বখত এলাকায় বেশ জনপ্রিয়। এই আসনে জাসদের (ইনু) প্রার্থী হিসেবে আগে থেকেই মাঠে নেমেছেন ওবায়দুস সুলতান বাবলু। আর বিএনপির শরীক দল জামায়াত এই আসনে জামায়াতের কেন্দ্রীয় নেতা ইজ্জতউল্যাহকে প্রার্থী হিসেবে পেতে চায়। যদিও এই আসনে বিএনপি প্রার্থী সাবেক এমপি হাবিবুল ইসলাম হাবিবের রয়েছে শক্ত অবস্থান।

সাতক্ষীরা-২ (সদর) আসনে আওয়ামী লীগের শরিক জাতীয় পার্টি কোন অবস্থাতেই আসটি গত বারের মতো আর ছাড় দিতে চায়না। জাতীয় পার্টির প্রার্থী হিসেবে মাঠে রয়েছে সাতক্ষীরা জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি শেখ আজহার হোসেন, কেন্দ্রীয় নেতা শেখ মাতলুব হোসেন লিয়ন ও জাপার কেন্দ্রীয় নেতা এড. স,ম সালাউদ্দিন। তারা মনে করছে আসনটি এবার জাতীয় পার্টির ঘরেই আসবে। আর বিএনপির আসনটি হাতছাড়া হওয়ার সম্ভবনাই বেশি। আসনটি জামায়াতের কাছে ছেড়ে দিতে হতে পারে। কারণ এই আসনে বিএনপির তেমন কোন শক্ত প্রার্থী নেই। এই আসনে জামায়াতের প্রার্থী জেলা জামায়াতের আমীর মুহাদ্দিস আব্দুল খালেক বিএনপি জোটের প্রার্থী হবে বলে সাবই মনে করছে। এই আসনে গণফোরামের দলীয় মনোনয়ন কিনেছেন জেলা গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক ভূমিহীন নেতা আলী নূর খান বাবুল।

সাতক্ষীরা-৩ ( দেবহাটা,আশাশুনি ও কালিগঞ্জের একাংশ ) আসনে আবারও আওয়ামী লীগের প্রার্থী ডা: আ ফ ম রুহুল হক মনোনয়ন পাচ্ছে, এটা মোটামুটি নিশ্চিত। শরিকদের নিয়ে তেমন কোন চাপ নেই। আসনটি এবারও আওয়ামী লীগের ঘরেই থাকবে। এই আসনে জাপার প্রার্থী এড. স,ম সালাউদ্দিন সুবিধা করতে পারবে না একথা ভেবেই তিনি নিজে নিজেই সরে পড়েছেন। স.ম সালাউদ্দিন সাতক্ষীরা-২ (সদর ) আসনে জাপা দলীয় মনোনয়ন সংগ্রহ করেছেন। তবে বিএনপির প্রার্থী ডা: শহিদুল আলম শক্ত প্রার্থী হলেও শরীক দল জাতায়াত নিয়ে বেশ চাপে আছেন। এই আসনে জামায়াতের প্রার্থী রবিউল বাশার। তারা আসনটি ছাড়তে নারাজ।

সাতক্ষীরা-৪ (শ্যামনগর ও কালিগঞ্জের একাংশ ) আসনে শরিকদের চাপে দিশেহারা আওয়ামী লীগ। গত দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এই আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী এস এম জগলুল হায়দার এমপি নির্বাচিত হলেও এবার আসনটি শরিকদের হাতেই তুলে দিতে হচ্ছে। এখানে জাতীয় পার্টির আব্দুল সাত্তার মোড়ল ও বিকল্প ধারা প্রার্থী সাবেক এমপি এইচ এম গোলাম রেজা জোর লবিং চালিয়ে যাচ্ছে আসনটি ছিনিয়ে নিতে। তাদের দু’জনের মধ্যে কে জেতে, আর কে হারে এই লড়াই চলছে। জাসদের প্রার্থী অধ্যক্ষ আশেক-ই-এলাহী আওয়ামী জোটের মনোনয়ন দৌড়ে বেশ এগিয়ে। তিনিও আগে থেকেই মাঠে কাজ করে যাচ্ছেন। আর বিএনপির শরিক জামায়াতের প্রার্থী সাবেক এমপি গাজী নজরুল ইসলাম আসনটি তাদের দখলে নেওয়ার সম্ভাবনাই বেশি। তবে বিএনপির প্রার্থী এড. সৈয়দ ইফতেখার আলী ও মাষ্টার আব্দুল ওয়াহেদ শরিকদের হঠাতে মরিয়া হয়ে কাজ করছে।

সাতক্ষীরা জেলাব্যাপী এখন আলোচনার বিষয় হয়ে দাড়িয়েছে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি শরিকদের জন্য কোন কোন আসন ছাড় দিতে হচ্ছে। কারণ সাতক্ষীরার চারটি আসনেই আ.লীগ-বিএনপি’র যেমন শক্তিশালী প্রার্থী রয়েছে, তেমনি শক্তিশালী প্রার্থী রয়েছে তাদের শরিক জামায়াত,ওয়ার্কার্স পার্টি, জাতীয় পার্টি ও জাসদেরও।

আসন ভাগাভাগি নিয়ে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মধ্যে অস্বস্তি ও ক্ষোভ বিরাজ করছে। এরই অংশ হিসেবে ইতোমধ্যে তালা-কলারোয়া ও পাটকেলঘাটায় দলীয় প্রার্থীর দাবিতে কয়েক দফায় বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশও করেছে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। সব মিলিয়ে সাতক্ষীরার চারটি আসনেই আ.লীগ ও বিএনপি শরিকদের চাপে ভাল নেই মনোনয়ন প্রত্যাশীরা।

##