সুষ্ঠু নির্বাচন আদায় করে নিতে হবে : ড. কামাল


90 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সুষ্ঠু নির্বাচন আদায় করে নিতে হবে : ড. কামাল
ডিসেম্বর ১২, ২০১৮ জাতীয় ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন ডেস্ক ::
পূণ্যভূমি সিলেটে মাজার জিয়ারতের মাধ্যমে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আনুষ্ঠানিক প্রচার শুরু হয়েছে।

বুধবার বিকেলে ঢাকা থেকে বিমানে সিলেটে পৌঁছে হযরত শাহজালাল (রহ.) মাজার জিয়ারত করেন ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতারা। এ সময় দেশে এখনও সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিবেশ তৈরি হয়নি বলে অভিযোগ করেন ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেন।

গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন বলেন, আমাদের নেতাকর্মীদের প্রতিদিন গ্রেফতার করা হচ্ছে। এটি সুষ্ঠু নির্বাচনের আলামত নয়। তবে আমরা শেষমুহূর্ত পর্যন্ত মাঠে থাকব। সুষ্ঠু নির্বাচন আদায় করে নিতে হবে।

শত প্রতিকূলতার পরও নির্বাচনে জয়ের প্রত্যয় ব্যক্ত করে তিনি বলেন, সব জায়গায় অসাধারণ সাড়া পড়েছে। খুব অল্প সময়ের জন্য আমরা এসেছি। কিন্তু মানুষের যে আগ্রহ, মানুষ জানে তাদের মালিকানা রক্ষা করার জন্য ভোট কেন্দ্রে যেতে হবে। সুষ্ঠু নির্বাচন দেওয়ার জন্য মানুষ ঐক্যবদ্ধ হয়েছে।

হযরত শাহজালাল (রহ.) মাজার জিয়ারতের পর সন্ধ্যায় হযরত শাহপরাণ (রহ.) মাজার জিয়ারত করেন ঐক্যফ্রন্টের নেতারা।

হযরত শাহজালাল (রহ.) মাজার প্রাঙ্গনে সাংবাদিকদের ড. কামাল হোসেন বলেন, সুষ্ঠু নির্বাচন না হলে দেশের মালিক যে জনগণ, তাদের মালিকানা থাকে না। জনগণের মালিকানা না থাকলে স্বাধীনতা থাকে না। স্বাধীনতার লক্ষ্যই সুষ্ঠু নির্বাচনের আয়োজন। এজন্য দেশের ১৮ কোটি মানুষকে সোচ্ছার হতে হবে।

দেশের মালিকানা জনগণের কাছে ফিরিয়ে আনতে ঐক্যফ্রন্টকে বিজয়ী করার আহবান জানান ড. কামাল হোসেন।

তিনি জনগণের উদ্দেশ্যে বলেন, ৩০ তারিখ (ডিসেম্বর) সকাল থেকে আপনারা ভোট প্রযোগ করবেন। ভোটকেন্দ্র পাহারা দিবেন। দুই নম্বরি করতে দিবেন না। শেষ পর্যন্ত নির্বাচনে লড়ে যাব আমরা।

নির্বাচন নিয়ে সরকারের অসৎ উদ্দেশ্য আছে অভিযোগ করে তিনি ঐক্যের গুরুত্ব উল্লেখ করে বলেন, আমরা যদি ঐক্যবদ্ধভাবে দাঁড়াই, ইনশাল্লাহ অসৎ উদ্দেশ্য থাকলেও এটা হাসিল করতে পারবে না। আমাদের ইতিহাস দেখুন- জনগণ যখন ঐক্যবদ্ধ হয়েছে, তারা তাদের অধিকার আদায় করতে পেরেছে।

এ সময় ঐক্যফ্রন্টের নেতাদের মধ্যে জেএসডি সভাপতি আ স ম আব্দুর রব, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি কাদের সিদ্দিকী, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরম্নল ইসলাম খান, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ড. জাফর উল্লাহ চৌধুরীসহ স্থানীয় নেতারা উপস্থিত ছিলেন।